মরণোত্তর চতুর্থ গ্র্যামি

বাড়িতে সোনার গ্রামোফোনের সংখ্যা তিনটি। চতুর্থবারের দৌড়ে নাম উঠেছিল এবার। কিন্তু আগামী বছর ১০ ফেব্রুয়ারির গ্র্যামি সন্ধের আগে ১২ ডিসেম্বর সুরলোকে যাত্রা করলেন পণ্ডিত রবিশঙ্কর। সঙ্গীতজগতে জীবনভর অবদানের তাঁকে জন্য মরণোত্তর গ্র্যামি পুরস্কার প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। গতকালই গ্র্যামি কমিটি এই সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়।

Updated: Dec 13, 2012, 02:44 PM IST

বাড়িতে সোনার গ্রামোফোনের সংখ্যা তিনটি। চতুর্থবারের দৌড়ে নাম উঠেছিল এবার। কিন্তু আগামী বছর ১০ ফেব্রুয়ারির গ্র্যামি সন্ধের আগে ১২ ডিসেম্বর সুরলোকে যাত্রা করলেন পণ্ডিত রবিশঙ্কর। সঙ্গীতজগতে জীবনভর অবদানের তাঁকে জন্য মরণোত্তর গ্র্যামি পুরস্কার প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। গতকালই গ্র্যামি কমিটি এই সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়।
ক্যারল কিং, দ্য টেম্পটেশন সহ সাত মোননীতদের অন্যতম ছিলেন পণ্ডিত রবিশঙ্কর। তবে মৃত্যুর কারণে নয়। এবছর ৭ জনের মধ্যে থেকে লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্টের জন্য তাঁকেই বেছে নেওয়া হয়েছিল। অ্যাওয়ার্ড কমিটির পক্ষ থেকে স্টেফানি শেল সংবাদ সংস্থা এএফপিকে জানান গত সপ্তাহেই টেলিফোনে রবিশঙ্করকে জানানোও হয়েছিল সেকথা।
মার্গ সঙ্গীতে প্রাচ্য-পাশ্চাত্যের প্রথম সেতু পণ্ডিত রবিশঙ্কর ভারতীয় সময় বুধবার ভোরে শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন।