সানবাথ দেখে সইফের প্রেমে বেবো

গত কয়েক মাস মুখে কুলুপ এঁটে থাকার পর অবশেষে মুখ খুললেন বেবো। কিছুদিন আগেও বিয়ে সংক্রান্ত প্রশ্ন সামনে এলেই উত্তর এড়িয়ে যেতে `হিরোইন`-এর প্রোমোশন নিয়ে ব্যস্ত থাকার অজুহাত দিতেন করিনা।

Updated: Oct 1, 2012, 10:04 PM IST

গত কয়েক মাস মুখে কুলুপ এঁটে থাকার পর অবশেষে মুখ খুললেন বেবো। কিছুদিন আগেও বিয়ে সংক্রান্ত প্রশ্ন সামনে এলেই উত্তর এড়িয়ে যেতে `হিরোইন`-এর প্রোমোশন নিয়ে ব্যস্ত থাকার অজুহাত দিতেন করিনা। হয়তো ভেবেছিলেন `হিরোইন` মুক্তি পেতেই সংবাদ শিরোনামে চলে আসবেন তিনি। তবে বাস্তবে সেরকমটা একেবারেই না হওয়ায় এবার প্রচারে থাকার নতুন পথ আঁকড়ে ধরলেন বেবো। একটি লাইফস্টাইল ম্যাগাজিনকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে উন্মোচিত করলেন নিজের প্রণয় জীবনের সাতসতেরো।
ওই বিশেষ ম্যাগাজিনের অক্টোবর সংখ্যায় করিনা জানিয়েছেন, মাত্র দুমাস ডেট করার পরই সইফ তাঁকে বলেছিলেন, "দেখো...তুমি জানো আমি কোনও ২৫ বছরের যুবক নই। আমি তোমাকে প্রতিরাতে বাড়ি ছাড়তে যেতে পারবো না"। এরপরই নাকি দুজনের সিদ্ধান্তে করিনার মা ববিতার সঙ্গে দেখা করেন সইফ। "করিনাই আমার জীবনের সেই নারী। ওর সঙ্গেই আমি বাকি জীবনটা কাটাতে চাই"। সইফের স্পষ্ট স্বীকারোক্তিতে সঙ্গেই সঙ্গেই রাজি হয়ে যান ববিতা। সেই রাতেই ব্যাগ গুছিয়ে সইফের সঙ্গে চলে আসেন বেবো।
তাঁর প্রথম সইফের প্রেমে পড়ার গল্পোও খোলাখুলি ভাবে জানিয়েছেন বেবো। `টশন`-এর শুটিং চলাকালীন সুইমিং পুলের ধারে সইফকে সান বাথ নিতে দেখেই প্রেমে পড়ে গিয়েছিলেন করিন। বাকি ইতিহাস সবার জানা। নিজের হাতে ট্যাটু করে চিরকালের জন্য করিনার নাম খোদাই করে নিয়েছেন সইফ। আর এটাই করিনার কাছে সবথেকে বড় পাওনা।