চলে গেলেন ‘জটায়ু’

লালমোহন বাবুর আসন শূন্য করে চলে গেলেন বিভু ভট্টাচার্য. ফেলুদা সিরিজের খ্যাতনামা ‘জটায়ু’ চলে গেলেন

Updated: Sep 22, 2011, 03:51 PM IST

লালমোহন বাবুর আসন শূন্য করে চলে গেলেন বিভু ভট্টাচার্য. ফেলুদা সিরিজের খ্যাতনামা ‘জটায়ু’ চলে গেলেন নিঃশব্দে. বুধবার রাত সাড়ে বারোটা নাগাদ সাঁতরাগাছির বাড়িতে আচমকা হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি. কিন্তু চিকিত্সার ন্যূনতম সময়টুকুও পাওয়া যায়নি. তাঁর মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ বাংলা চলচ্চিত্র জগত.
অপেক্ষায় ছিলেন `রয়্যাল বেঙ্গল রহস্যের` মুক্তির. এই ছবিটা এক্কেবারে অন্যরকম হবেই হবে, প্রবল প্রত্যয় ছিল তাঁর. বুধবারই শেষ করেন সন্দীপ রায়ের রয়্যাল বেঙ্গল রহস্যের ডাবিং. বাড়ি ফেরেন. সবসময় যেমন হাসি মাখা মুখে ঘুরতেন, সবাইকে মাতিয়ে রাখতেন, এই দিনটিতেও তেমনই ছিলেন জটায়ু বিভু ভট্টাচার্য. কিন্তু হঠাত্ই শারীরটা খারাপ করল রাতে. কাউকে কিচ্ছু বুঝতে দিলেন না, হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ারও সময় দিলেন না. হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে নিঃশব্দে চলে গেলেন তিনি. চলে গেলেন বিভু ভট্টাচার্য.
যে মুখগুলো তাঁকে ঘিরেই সারাক্ষণ হাসি-গল্পে মেতে থাকত, সেই মুখগুলোতেই এখন বিষাদে বিষন্ন. চোখে জল. স্মৃতি ফিরে ফিরে আসছে বার বার. এমন হাসিমুখের একজন এভাবে চলে যেতে পারে, বিশ্বাস করতে চাইছে না মন. তাঁর এই আকস্মিক মৃত্যু মেনে নিতে পারছে না টলিপাড়া.

ফেলুদা সিরিজের `বোম্বাইয়ের বোম্বেটে`, `কৈলাসে কেলেঙ্কারি`, `টিনটোরেটোর যীশু`, `গোরস্থানে সাবধান`-এর মতো ছবিতে জটায়ুর চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন তিনি. সম্প্রতি শ্যুটিং শেষ করেছিলেন রয়্যাল বেঙ্গল রহস্য ছবির. টেলিভিশনে গোপাল ভাঁড় চরিত্রেও একসময় নজর কেড়েছেন. তবে লালমোহন গঙ্গোপাধ্যায়ের চরিত্রেই নিজের আলাদা পরিচিতি তৈরি করেন তিনি. সবাইকে হাসাতে হাসাতেই চলে গেলেন বিভু ভট্টাচার্য. তাঁর হাসি মুখটাই চিরকালের জন্য রয়ে গেল মনে.