ভূতের ভোট-ভবিষ্যত্ ও একটি শিশুশিল্পী

শর্মিলা মাইতি ছবির নাম- ভূতনাথ রিটার্নস রেটিং- ***

Updated: Apr 16, 2014, 08:10 PM IST

শর্মিলা মাইতি

ছবির নাম- ভূতনাথ রিটার্নস

রেটিং- ***

ইলেকশন সিজন চলছে। বহুজাতিক সংস্থা থেকে নিউজ মিডিয়া, সবকিছুতেই এখন স্টার-প্রার্থী ইলেকশন। এই সময়ে ভূতনাথের প্রত্যাবর্তন হলে যে, ইলেকশনের গরম বাজারেই তাঁকে জীবিত প্রার্থীর সঙ্গে সম্মুখসমরে লড়তে হত, সে-বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই! পরিচালক তাঁর ছবি বানানোর আগে টাইম ক্যালকুলেশন করে রেখেছিলেন, ভোটের বাজারেই যাতে তাঁর ভূতের ভবিষ্যত্ একেবারে পাকাপোক্ত নির্ধারণ হয়ে যায়, তার সব ব্যবস্থাই করে রেখেছেন।

বলার কোনও দরকার নেই, ভূতনাথ স্বয়ং অমিতাভ বচ্চন। সারা ছবিতে একটাই কস্টিউম পরে কাটাতে হয়েছে। তবে তাঁর সহচর পার্থ ভালেরাও। শিশুশিল্পী বলে সম্বোধন করতে গলা কাঁপতে বাধ্য। এত অসম্ভব প্রতিভাবান শিল্পী যে আমাদেরই চোখের সামনে ছিল, সেটা এর অভিনয় দেখে প্রথমবার বুঝতে পারবেন। অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে এই শিল্পী সমানতালে, সমান ছন্দে না এগোলে ছবির অর্ধেক আনন্দই চলে যেত অন্তরালে।

ছবির শুরুটা একটু ঢিমেতাল। ভূত-সমাজে রি-এন্ট্রির পর হাস্যাস্পদ হয়ে ওঠেন ভূতনাথ। পৃথিবীতে গিয়ে সামান্য এক শিশুকেও ভয় দেখাতে পারলেন না তিনি। অগত্যা একটা সেকেন্ড চান্স। মনুষ্যজন্মের জন্য টোকেন নিয়ে বসে না থেকে ভূত হিসেবেই পৃথিবীতে রিটার্নের পারমিশন পেয়ে গেলেন হেড-অফিস থেকে। কিন্তু তার পর! কলিযুগের বাচ্চারা যে মোটেই ভয় পায় না। তার ওপর ভারতের এক বিরাট জনসংখ্যার শিশুদের শৈশব এখনও বিপন্ন। ভবিষ্যত্ খাদের গহ্বরে।

এই ভূতনাথের আলাপ এমনই এক বিপন্ন শিশুর সঙ্গে। কাঁকর-ভরা রাস্তায় হাঁটতে দৌড়তে অভ্যস্ত যে। ধরাভি-র গরিব মায়ের সন্তান বলেই সম্পন্ন ঘরের ছেলেদের সঙ্গে ক্রিকেট খেলতে পায় না সে। টেকনিক্যাল ফল্ট-এর রিপিটিশনের জন্যেই আবার মনুষ্যলোকে একটিমাত্র ছেলে দেখতে পায় ভূতনাথকে। শৈশব আর সামাজিক পটভূমি মিলেমিশে যাওয়ার ছবি এখান থেকে শুরু। পারস্পরিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে একে অপরের উপকার করে চলে। তাদের কীর্তিকলাপের মধ্যে দিয়েই খুলে যায় উন্নয়নের বিপরীতের সমাজের অবক্ষয়ের দিকটিও।

পরিচালক বিলক্ষণ জানেন যে তাঁর টার্গেট অডিয়েন্স বাচ্চারা। এবং আজকের যুগের কার্টুন নেটওয়র্ক, ভিডিয়ো গেমস আর ফেসবুক অপারেট করতে জানা বাচ্চারা। ভোট কী ও কয় প্রকার, পার্টি কাকে বলে, কাকেই বা বলে দলাদলি আর লবিবাজি, চুনাও-তে সামিল হওয়ার অনেক আগেই যদি এইসব সহজপাঠের ধাপগুলো পেরোতে হয়, তবে কীভাবে গল্প গাঁথতে হবে। ভাউ-এর চরিত্রে বোমান ইরানির টুইস্টগুলো নিজের চোখে না দেখলে মিস করবেন। আর হ্যা, মিস করা যাবে না আরও তিনজনকে। শাহরুখ খান ও রণবীর কপূর। এবং অনুরাগ কাশ্যপকে।

নাঃ, যে-জায়গাটায় পরিচালক একেবারে পা পিছলে পড়েই গেলেন, সেটা শেষ আ ধঘণ্টা। এমন নির্জীব যে বাচ্চারা বোর হতে শুরু করবে। এ ধরণের ছবির শেষ ভাগ জমিয়ে দিতে হয়, ড্রামাটাইজ করার অনেকগুলো সুযোগ বড় বেশি ফুটেজ দিয়ে নষ্ট করেছেন। ভূতনাথ রিটার্নস তাই অমিতাভ বচ্চনের চেয়েও পার্থ ভালেকরের জন্য বেশি মনে থাকবে। গত বছর এই ছেলেটিই অভিনয় করেছিল মরাঠি শর্ট ফিল্ম কালতি ঢোকা বরতি পায়-তে। কান ফেস্টিভ্যালে উচ্চ-প্রশংসিত হয়েছিল এই ছেলেটির চমকে দেওয়া অভিনয়! ফিল্ম জার্নালিস্ট হয়েও আমরা কতটুকু খবর রেখেছি!