বাংলাদেশে হরতালের প্রথম দিনেই অশান্তি, হত ১

বাংলাদেশে হরতালের প্রথম দিনেই অশান্তি, হত ১

বাংলাদেশে হরতালের প্রথম দিনেই অশান্তি, হত ১ জামাতের ডাকা হরতালের প্রথমদিনেই বাংলাদেশে অশান্তির বলি হলেন একজন। নোয়াখালিতে জামায়েত সমর্থকদের পাথরের ঘায়ে মৃত্যু হয়েছে এক অটোচালকের। সাতকানিয়াতে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন এক পুলিসকর্মী। চট্টগ্রাম, রাজশাহি, কুমিল্লায় পুড়েছে গাড়ি। তবে, ঢাকায় কোনও প্রভাবই ফেলতে পারেনি জামাতের হরতাল। বরং আবদুল কাদের মোল্লার ফাঁসি দ্রুত কার্যকরের দাবিতে আরও বেশি করে সরব হয়েছে শাহবাগ।

সাজা ঘোষণার পর থেকেই শুরু হয়েছে অশান্তি। সময় যত গড়িয়েছে, ততই ছড়িয়েছে হিংসার আগুন. চট্টগ্রাম, নোয়াখালি, কুমিল্লা, রাজশাহি---একাধিক জায়গা থেকে মিলেছে অশান্তির খবর। সবক্ষেত্রেই হরতাল সমর্থকদের বাধা দিতে গিয়ে রোষের মুখে পড়েছেন পুলিসকর্মীরা। সাতকানিয়ায় জামাত সমর্থকদের ছোঁড়া গুলিতে আহত হয়েছেন এক পুলিসকর্মী। আর নোয়াখালিতে জামাত সমর্থকদের ছোড়া পাথর কেড়ে নিয়েছে এক অটোচালকের প্রাণ। রাস্তা অবরোধ, গাড়িতে ভাঙচুর, আগুনের মতো ঘটনা থেকে বুধবারও রেহাই পায়নি বাংলাদেশের পথঘাট। পুলিসকে লক্ষ্য করে ইট পাটকেল ছোড়া হয়েছে বহু জায়গায়। তবে, জামাতের ডাকা দুদিনের হরতাল তেমন কোনও প্রভাবই ফেলতে পারেনি ঢাকা শহরে। বুধবার পথঘাট ছিল অন্যদিনের মতোই স্বাভাবিক। দেশের অন্য অংশের অশান্তি কোনও ছায়াই ফেলতে পারেনি ঢাকার শাহবাগ স্কোয়্যারে। বরং সেখানে দেখা গিয়েছে উচ্ছ্বাসের ছবি। দ্রুত কার্যকর করতে হবে আবদুল কাদের মোল্লার ফাঁসির নির্দেশ। এই দাবিই প্রতিমুহূর্তে জোরদার হয়েছে গণ জাগরণ মঞ্চ থেকে।
 
একই ছবি দেখা গিয়েছিল ৫ ফেব্রুয়ারির পর। একাত্তরে মানবতা বিরোধী অপরাধে সেদিন যাবজ্জীবন সাজা হয়েছিল আবদুল কাদেরের। তখনও মীরপুরের কসাইয়ের মুক্তির দাবি জানিয়ে বাংলাদেশকে অশান্ত করে তুলেছিল জামায়েতে ইসলামির সমর্থকেরা। এবারও সেই পথেই হাঁটতে চাইছে তারা। কিন্তু, গণ জাগরণ মঞ্চ যেভাবে দেশে এবং দেশের বাইরের সমর্থন পাশে পেয়েছে, তাতে স্বাভাবিকভাবেই হালে পানি পাচ্ছে না জামাত। তত্পর প্রশাসনও। অশান্তি যাতে কোনওভাবেই ছড়িয়ে না পড়তে পারে, তারজন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থাই নিয়েছে শেখ হাসিনা সরকার।

First Published: Thursday, September 19, 2013, 00:01


comments powered by Disqus