তিন স্বামীর তিন সন্তানের জননী টাইটানিক কন্যা এখন “৩X৩″ শুনেই রেগে লাল

`টাইটানিক` সিনেমায় `রোজ`-এর ভালবাসার কথা মনে আছে! সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য এমনকি জীবনকেও বাজি রেখে গরীব জ্যাকের কাছে ছুটে গিয়েছিলেন রোজ। `টাইটানিক` ডুবির সময় জ্যাককে ছেড়ে অনায়াসে বোটে চড়ে বেঁচে যেতে পারতেন রোজ। কিন্তু না, ভালবাসার জন্য মৃত্যুকে বরণ করতে প্রস্তুত ছিলেন রোজ। গোটা বিশ্বের প্রায় সব সিনেমাপ্রেমীরই জানা আছে রোজের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন কেট উইন্সলেট।

Updated: Jan 9, 2014, 06:10 PM IST

---------------------------------------------
`টাইটানিক` সিনেমায় `রোজ`-এর ভালবাসার কথা মনে আছে! সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য এমনকি জীবনকেও বাজি রেখে গরীব জ্যাকের কাছে ছুটে গিয়েছিলেন রোজ। `টাইটানিক` ডুবির সময় জ্যাককে ছেড়ে অনায়াসে বোটে চড়ে বেঁচে যেতে পারতেন রোজ। কিন্তু না, ভালবাসার জন্য মৃত্যুকে বরণ করতে প্রস্তুত ছিলেন রোজ। গোটা বিশ্বের প্রায় সব সিনেমাপ্রেমীরই জানা আছে রোজের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন কেট উইন্সলেট।

কিন্তু একটা কথা হয়তো অনেকেরই জানা নেই `টাইটানিক`-এর রোজের সঙ্গে বাস্তবের রোজ মানে কেটের একটা বিষয় দারুণ মিল আছে। নিশ্চয়তা নয় গতানুগতিক ভালবাসা নয়, ব্যাকরণ মেনে নিয়মমাফিক প্রেম নয়। কেট চান অন্যরকম ছকভাঙা ভালবাসা। ঠিক যেমনটা চেয়েছিল টাইটানিকের রোজ।

টাইটানিকে উঠে রোজ সেটা পেয়েছিলেন, কিন্তু জীবনের বড় জাহাজে উঠে বাস্তবের রোজ মানে কেট সেটা পাননি। পাননি বলেই বোধহয় কেট এখন ব্রিটিশ মিডিয়ায় ঠাট্টার পাত্রী। তিন তিনটে বিয়ে করে ফেলেছেন কেট। প্রতিটি পক্ষের এক জন করে সন্তানের মা হয়েছেন। তারপর তাদের ডিভোর্সও দিয়েছেন (এখনও অবশ্য সরকারিভাবে তৃতীয় পক্ষের স্বামীকে ডিভোর্সে দেননি)। কিন্তু কেট এখনও ভালবাসার সন্ধানে। মেজাজ খুব দ্রুত হারিয়ে ফেলেন। পরিচালক,সহ অভিনেতাদের সঙ্গেও সম্পর্ক ভাল নয়।

গত মাসেই আগেই ৩৮ বছরের কেট তাঁর তৃতীয় সন্তানের মা হন।

ব্যস, আর কী ব্রিটিশ মিডিয়া এমন খবরের গন্ধ পেয়েই কেটের নাম দিয়ে ফেলেছে চার গুন চার ( “4X4″)-এর অপেক্ষায়। “3X3″ এই নামেই এখন কেটকে ডাকা হচ্ছে।

প্রেস কনফারেন্সে এসে এমন কথা শুনে কেটের রাগ একেবারে চরেম ওঠে। অসভ্য গালিগালজ করে কেট বলেন, আমার যা খুশি তাই করব, আমার জীবন, আমার ইচ্ছা।

সেই বিখ্যাত কেট উইন্সলেটের জীবনটা কিন্তু টাইটেনিকের রোজের সঙ্গে কিছুটা মিল আছে। এরপর তিনি বলেন, “People might judge all they like, but I’m a f****** grown-up,”।

টাইটানিকের সাফল্যের পরের বছরই কেট বিয়ে করেন পরিচালক জিম থারাপ্লেটনকে। ২০০১ সালে জিম-কেটের সন্তানের জন্ম হয়। তার নাম দেওয়া হয় মিয়া কিন্তু এর কিছু মাস পরেই ডিভোর্স হয়ে যায় তাঁদের। এরপর ২০০৩ স্যাম মেন্ডেসকে বিয়ে করেন। বিয়ের পরের বছরেই স্যাম-কেটের সন্তানের জন্ম হয়। কেটের দ্বিতীয় পক্ষের বরের সন্তানের নাম দেওয়া হয় জো।

সেই বিয়েটা অবশ্য আট বছর টিকে ছিল। এরপর বাড়িতে আগুন লাগার ঘটনার পরই হঠাত্‍ই ডিভোর্স হয়ে যায় তাঁদের। ২০১২ সালে হলিউড অভিনেতা নেড রোকএনরোলকে বিয়ে করেন কেট। এরপর ফের সন্তান। তাই আর কী, টাইটানিক কন্যার নাম দেওয়া হয় “3X3″।

কেটের বিরুদ্ধে তাঁর আগের পক্ষের বর-দের একটাই অভিযোগ ও নাকি কিছুদিন পরেই ভালবাসার ওপর প্যাশান হারিয়ে ফেলে। যা শুনে হলিউডের জোকস, ভাগ্যিস, টাইটানিক ডুবিতে জ্যাক মারা গিয়েছিলেন, না হলে যদি জানতেন যে রোজ তাঁর এত দামি ভালবাসায় আস্থা হারিয়েছেন, তা হলে আর কী...

Tags: