বেহালার বামাচরণ রায় রোডে শাসকদল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে গুলি চালানোর অভিযোগ

বেহালার বামাচরণ রায় রোডে শাসকদল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে গুলি চালানোর অভিযোগ

ফের উত্তপ্ত বেহালা। এবার বেহালার বামাচরণ রায় রোডে গুলি চালানোর অভিযোগ। সিপিএম নেতা অরিন্দম ঝার বাড়ি লক্ষ্য করে অন্তত ৫ রাউন্ড গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। দাবি অরিন্দম ঝার। রাত দেড়টা নাগাদ এই হামলা হয়। যদিও বাড়ির বাইরে থেকে সকালে ৪টি গুলির খোল উদ্ধার করেছে পুলিস।  গোটা ঘটনায় রাজনৈতিক সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলেছেন বামনেতা অরিন্দম ঝা এবং তাঁর পরিবার। তাঁদের দাবি, রাতে হামলার নেপথ্যে শাসকদল আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই। তবে অভিযোগ মানতে নারাজ তৃণমূল। এই ঘটনার সঙ্গে রাজনীতির কোনও যোগ নেই বলেই দাবি স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বের।

হরিদেবপুর থানার ওসির বিরুদ্ধে একগুচ্ছ অভিযোগ অম্বিকেশ মহাপাত্রের হরিদেবপুর থানার ওসির বিরুদ্ধে একগুচ্ছ অভিযোগ অম্বিকেশ মহাপাত্রের

ভোটারদের ভয় দেখানো হচ্ছে। শুধু তাই নয়, রীতিমতো হুমকিও দেওয়া হচ্ছে। বারবার জানালেও কোনও গুরুত্ব দিচ্ছে না পুলিস। প্রচারের সময় তাঁকে হুমকি দেওয়া হয়। অভিযোগ পাওয়ার পরও হাত গুটিয়ে পুলিস। হরিদেবপুর থানার ওসির বিরুদ্ধে একগুচ্ছ অভিযোগ বেহালা পূর্ব কেন্দ্রের বাম সমর্থিত নির্দল প্রার্থী অম্বিকেশ মহাপাত্রের। ওসি দেবতোষ বসাককে সরানোর দাবিতে কমিশনের দ্বারস্থ অম্বিকেশ। সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনেরও দাবি আমরা আক্রান্ত মঞ্চের প্রার্থীর। অম্বিকেশের সঙ্গেই কমিশনে সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনের দাবি নিয়ে সেভ ডেমোক্রেসি সংগঠনের পক্ষ থেকে অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি অশোক গাঙ্গুলিও।

ভবানীপুরে ভোট প্রচারে দিদিকে হারিয়ে এগিয়ে বৌদি ভবানীপুরে ভোট প্রচারে দিদিকে হারিয়ে এগিয়ে বৌদি

কেন্দ্র ভবানীপুর। জেলা, রাজ্য, দেশ তথা গোটা বিশ্বের আতসকাচের তলায় কলকাতা দক্ষিণের এই নজরকাড়া কেন্দ্র। দিদির গড়ে বৌদির লড়াই। হার-জিতের আগেই ভোটের বাদ্যি সবথেকে যে কেন্দ্রে বেজেছে, তার নাম ভবানীপুর। ট্রামে, বাসে, মেট্রোতে এখন একমাত্র চর্চা ভবানীপুর। নিন্দুকদের গলায় কটাক্ষের সুর, 'তৃণমূল সব জায়গায় জিতলেও হারবে ভবানীপুরেই।' বিজেপি সভাপতি অমিতজিও ভোট প্রচারে এসে বলে গেলেন ভবানীপুরে মমতাকে হারিয়েই পরিবর্তন আনুক মানুষ। এককাট্টা হয়েছে বিরোধীরাও। "রাজ্যের ২৯৪টি আসনে আমিই প্রার্থী", রাজ্য চষে বেড়ানো মুখ্যমন্ত্রী নিজের অলিগলিতে সময়টা একটু হলেও কম দিয়েছেন, আর সেটাই 'এনক্যাশ' করেছে জোটের প্রার্থী দীপা দাশমুন্সি। "৮ টি ওয়ার্ডের রন্ধ্রে রন্ধ্রে পৌঁছেছেন", দাবি দীপার। লোকসভার নিরিখে এই কেন্দ্রে বিজেপির কাছে পিছিয়ে তৃণমূল। অবশ্য ভাবনীপুরে বিজেপি লড়াইতে নেই বলেই দাবি শাসক-বিরোধী ও রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।   

ষষ্ঠ দফায় তৃণমূলের ভুরিভুরি কোটিপতি, সিপিএমের জ্যোতির্ময়ী একাই ৩ কোটির মালিক ষষ্ঠ দফায় তৃণমূলের ভুরিভুরি কোটিপতি, সিপিএমের জ্যোতির্ময়ী একাই ৩ কোটির মালিক

দফা ছয়। দক্ষিণে (কলকাতা দক্ষিণ, দক্ষিণ ২৪ পরগনা) ক্যাপিটালিস্টদের লড়াইয়ে নজর থাকবে গোটা রাজ্যের। প্রার্থীরা এখানে হেভিওয়েট কেবল জনপ্রিয়তায় নয়, প্রার্থী কত 'হেভি' তা আসলে মাপতে হবে টাকার অঙ্কে। লাখপতি আর কোটিপতি, দক্ষিণে জিতবে কে? 'তথাকথিত দক্ষিণপন্থী' না 'সর্বাহারা বাম'-জমাটি লড়াইয়ে জয় পরাজয়ের রেজাল্ট আউট ১৯ মে। শনিবার, ৩০ এপ্রিল, ভোটের পরীক্ষায় ষষ্ঠ দফায় দিদি (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়), বৌদি (দীপা দাশমুন্সি) ছাড়াও নজর কাড়বেন জাভেদ আহমেদ খান (তৃণমূল কংগ্রেস, কসবা কেন্দ্রের প্রার্থী), ইকবাল আহমেদ (তৃণমূল কংগ্রেস, খানাকুল কেন্দ্রের প্রার্থী), কলকাতার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় (তৃণমূল কংগ্রেস, বেহালা পূর্ব কেন্দ্রের প্রার্থী), ফিরহাদ হাকিম (তৃণমূল কংগ্রেস, কলকাতা বন্দর কেন্দ্রের প্রার্থী), পার্থ চট্টোপাধ্যায় (তৃণমূল কংগ্রেস, বেহালা পশ্চিম কেন্দ্রের প্রার্থী), আব্দুর রেজ্জাক মোল্লা (তৃণমূল কংগ্রেস, ভাঙর কেন্দ্রের প্রার্থী), দীপা দাশমুন্সি (কংগ্রেস, ভবানীপুর কেন্দ্রের প্রার্থী), অম্বিকেশ মহাপাত্র (নির্দল, বেহালা পূর্ব কেন্দ্রের প্রার্থী), জ্যোতির্ময়ী শিকাদার (সিপিএম, সোনারপুর উত্তর কেন্দ্রের প্রার্থী)।