২১ জুলাই পুলিসই প্রথমে আক্রান্ত হয়, জানালেন প্রাক্তন পুলিসকর্তা

১৯৯৩ সালের ২১ জুলাই পুলিস নিয়ম মেনেই প্রথম লাঠিচার্জ করে এবং কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে। পুলিসের গুলিতে ১৩ জন যুবকংগ্রেস কর্মী নিহতের তদন্ত গঠিত কমিশনে এসে এমনটাই জানালেন প্রাক্তন পুলিসকর্তা চয়ন মুখার্জি। আজ কমিশনে সাক্ষ্য দিয়েছেন তিনি। সেই সময় তিনি ছিলেন ডিসি ট্রাফিক। ব্রেবোর্ন রোডের দায়িত্বে থাকা চয়নবাবুর বক্তব্য, পুলিসই প্রথমে আক্রান্ত হয়েছিল। সেই আক্রমণ ঠেকাতে পুলিস প্রথমে লাঠিচার্জ করে। তাতেও উত্তেজিত জনতাকে ঠেকানো যায়নি। তাই পুলিস কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়তে শুরু করে। যদিও ব্রেবোর্ন রোডে পুলিসের গুলি চালানোর ঘটনা ঘটেনি। কিন্তু এর আগে তত্কালীন যুব কংগ্রেস নেতা এবং বর্তমানে মন্ত্রী মদন মিত্র, ফিরহাদ হাকিমরা সাক্ষ্য দিতে এসে অভিযোগ করেছিলেন, পুলিস সরাসরি গুলি চালিয়েছিল। সেদিক থেকে চয়ন মুখার্জির এই সাক্ষ্য যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।

Updated: Aug 21, 2013, 07:01 PM IST

১৯৯৩ সালের ২১ জুলাই পুলিস নিয়ম মেনেই প্রথম লাঠিচার্জ করে এবং কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে। পুলিসের গুলিতে ১৩ জন যুবকংগ্রেস কর্মী নিহতের তদন্ত গঠিত কমিশনে এসে এমনটাই জানালেন প্রাক্তন পুলিসকর্তা চয়ন মুখার্জি। আজ কমিশনে সাক্ষ্য দিয়েছেন তিনি। সেই সময় তিনি ছিলেন ডিসি ট্রাফিক। ব্রেবোর্ন রোডের দায়িত্বে থাকা চয়নবাবুর বক্তব্য, পুলিসই প্রথমে আক্রান্ত হয়েছিল। সেই আক্রমণ ঠেকাতে পুলিস প্রথমে লাঠিচার্জ করে। তাতেও উত্তেজিত জনতাকে ঠেকানো যায়নি। তাই পুলিস কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়তে শুরু করে। যদিও ব্রেবোর্ন রোডে পুলিসের গুলি চালানোর ঘটনা ঘটেনি। কিন্তু এর আগে তত্কালীন যুব কংগ্রেস নেতা এবং বর্তমানে মন্ত্রী মদন মিত্র, ফিরহাদ হাকিমরা সাক্ষ্য দিতে এসে অভিযোগ করেছিলেন, পুলিস সরাসরি গুলি চালিয়েছিল। সেদিক থেকে চয়ন মুখার্জির এই সাক্ষ্য যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।