ধৃত ৫ ছাত্রকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত রবীন্দ্রভারতীর

রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাঙচুরের ঘটনায় ধৃত পাঁচ ছাত্রের ১৬ জুন পর্যন্ত পুলিসি হেফাজতের নির্দেশ দিল আদালত। অন্যদিকে অভিযুক্ত এই পাঁচ ছাত্রকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা রক্ষা কমিটি। পাশাপাশি ছাত্রদের এই ধরণের আচরণের পিছনে কয়েকজন অধ্যাপকের মদত আছে বলেও আশঙ্কা রবীন্দ্রভারতী কর্তৃপক্ষের।

Updated: Jun 13, 2012, 05:11 PM IST

রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাঙচুরের ঘটনায় ধৃত পাঁচ ছাত্রের ১৬ জুন পর্যন্ত পুলিসি হেফাজতের নির্দেশ দিল আদালত। অন্যদিকে অভিযুক্ত এই পাঁচ ছাত্রকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা রক্ষা কমিটি। পাশাপাশি ছাত্রদের এই ধরণের আচরণের পিছনে কয়েকজন অধ্যাপকের মদত আছে বলেও আশঙ্কা রবীন্দ্রভারতী কর্তৃপক্ষের।
ফের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে তাণ্ডবের অভিযোগে কাঠগড়ায় তৃণমূল ছাত্র পরিষদ। ভর্তি প্রক্রিয়াকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার কার্যত রণক্ষেত্র হয়ে ওঠে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিটি রোড ক্যাম্পাস। ভাঙচুরের অভিযোগে ধৃত পাঁচজনকে ইতিমধ্যেই বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা রক্ষা কমিটি।
বুধবার বৈঠকের পরেই এই সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা রক্ষা কমিটি। শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ একজিকিউটিভ কাউন্সিলের বৈঠকে সিদ্ধান্তে সিলমোহর দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ঘটনায় ধৃত পাঁচজনকে জেরা করে পুলিস অন্য কোনও ছাত্রকে গ্রেফতার করলে সেক্ষেত্রেও এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে বলেই জানিয়েছে রবীন্দ্রভারতী কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে ছাত্রদের এই ধরনের আচরণের পিছনে অধ্যাপকদের একাংশের প্রচ্ছন্ন মদত আছে বলেও আশঙ্কা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের।
বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, অনলাইনে ভর্তি প্রক্রিয়ার জেরে টাকার অবৈধ লেনদেন বন্ধ হয়ে যাওয়াতেই ছাত্রদের এই আক্রোশ। কর্তৃপক্ষের অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবারই বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃণমূল পরিচালিত ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক-সহ মোট পাঁচজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃত সাধারণ সম্পাদকের বাড়ি থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কিছু সম্পত্তি উদ্ধার করেছে পুলিস। তার মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি কম্পিউটার রয়েছে। বুধবার ধৃত পাঁচজনের ১৬ জুন পর্যন্ত পুলিস হেফাজতের নির্দেশ দেয় শিয়ালদহ আদালত।