ভুবনেশ্বরে কৌস্তভের মৃত্যুর কারণ নিয়ে ধোঁয়াশা

Last Updated: Thursday, February 7, 2013 - 11:58

ভুবনেশ্বরে দুই ছাত্রের মৃত্যু ঘিরে ক্রমশ ঘনীভূত হচ্ছে রহস্য। ওড়িশা পুলিস প্রাথমিকভাবে জানিয়েছে, ট্রেনের ধাক্কায় দুই ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। সেক্ষেত্রে প্রশ্ন উঠছে, একই সঙ্গে কীভাবে হোস্টেল থেকে নিখোঁজ হয়ে যায় দুই ছাত্র? সেইসঙ্গেই ট্রেনের ধাক্কায় কীভাবে একসঙ্গে দুজনের মৃত্যু হল প্রশ্ন উঠেছে তা নিয়েও। রাতে ভুবনেশ্ব থেকে কলকাতায় নিয়ে আসা হয়েছে কৌস্তভের দেহ।
ওড়িশায় পড়তে গিয়ে হস্টেল থেকে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিল কলকাতার ছাত্র কৌস্তভ দাশগুপ্ত। গতকাল সন্ধ্যায় নিখোঁজ সেই ছাত্রের দেহ উদ্ধার হয় ভুবনেশ্বর স্টেশন লাগোয়া রেল লাইনের ধারে। পাশেই পড়েছিল তাঁর এক সহপাঠীর দেহও। মৃত ছাত্রকে নিয়মিত র‌্যাগিং করা হত বলে অভিযোগ উঠেছে। রাতে ভুবনেশ্বর থেকে দেহ নিয়ে আসা হয়েছে কলকাতায়। ভুবনেশ্বরের ইনস্টিটিউট অফ হোটেল ম্যানেজমেন্টের প্রথম বর্ষের ছাত্র কৌস্তুভ দাশগুপ্ত। কলেজের হস্টেলে থেকেই পড়াশোনা করত বেহালা বামাচরণ রায় রোডের বাসিন্দা কৌস্তুভ। মঙ্গলবার সন্ধে সাড়ে সাতটা নাগাদ মোবাইলে শেষবার মায়ের সঙ্গে কথা হয় কৌস্তুভের। মাকে কৌস্তুভ জানায় বন্ধুর সঙ্গে হস্টেলের বাইরে যাচ্ছে সে। রাতে হস্টেলে ফিরে মাকে ফোন করার কথা ছিল তাঁর। রাত এগারোটা নাগাদ বাবার মোবাইলে ফোন করে হস্টেল সুপার জানান কৌস্তুভ নিখোঁজ। খোঁজ মিলছে না কৌস্তুভের সহপাঠী অভিরূপ পণ্ডারও।

গোটা রাত উতকন্ঠায় কাটিয়ে, বুধবার ভোরে বিমান ধরে ভুবনেশ্বর রওনা হন কৌস্তুভের বাবা কমল দাশগুপ্ত। হস্টেলে পৌঁছে তিনি জানতে পারেন ভুবনেশ্বর স্টেশন থেকে কিছুটা দূরে রেল লাইনের ধারে মিলেছে দুই যুবকের দেহ। হাসপাতালে গিয়ে একমাত্র ছেলের মৃতদেহ দেহ সনাক্ত করেন কমলবাবু। পরিবারের অভিযোগ, কলেজে তৃতীয় বর্ষের ছাত্রদের নিয়মিত র‌্যাগিং-এর শিকার কৌস্তুভ। মাদক দ্রব্য আনানো, হস্টেল সাফাই, রান্না করা, ঠাণ্ডায় অর্ধ নগ্ন অবস্থায় ছাদে দাড় করিয়ে রাখা সহ বিভিন্ন ভাবে কৌস্তুভকে র‌্যাগিং করা হত বলে অভিযোগ উঠেছে।



First Published: Thursday, February 7, 2013 - 11:58


comments powered by Disqus