হিংসাশ্রয়ী রাজনীতিতে ইন্ধন দিতে নিহত দুষ্কৃতীর শেষযাত্রায় পা মেলালেন ববি

Last Updated: Sunday, February 17, 2013 - 19:38

গার্ডেনরিচ কাণ্ডের সূত্রপাত যে বিস্ফোরণের ঘটনায়, তাতে নিহত অভিজিতকে শ্রদ্ধা জানাতে তাঁর বাড়ি গেলেন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রথম সারির নেতারা। কেওড়াতলা মহাশ্মশানে দলীয় কাউন্সিলরের ছেলেকে শ্রদ্ধা জানালেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ও ক্রীড়ামন্ত্রী মদন মিত্র। বোমা বাঁধতে গিয়ে নিহত অভিজিতের শেষ যাত্রায় তৃণমূল নেতামন্ত্রীর হেভিওয়েট উপস্থিতি, শোকের আবহেও জন্ম দিচ্ছে একটি গুঞ্জনের? এই শ্রদ্ধাজ্ঞাপন কি হিংসাশ্রয়ী রাজনীতিকেই স্বীকৃতি দেওয়া নয়? 
গার্ডেনরিচ মানেই গুলি-বোমা-তোলাবাজি আর হিংসা নয়। শনিবার এই বার্তাই তো দিতে চেয়েছিলেন গার্ডেনরিচের মানুষ। মোমবাতি মিছিল থেকে উঠে এসেছিল হিংসাশ্রয়ী রাজনীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ। সেই মোমবাতি মিছিলের মাঝেই এসেছিল একটি মৃত্যু সংবাদ। পাহাড়পুরে বোমা বাঁধতে গিয়ে আহত অভিজিত্ শীলের মৃত্যু সংবাদ। রবিবার তৃণমূল কাউন্সিলর রঞ্জিত শীলের বাড়িতে গিয়ে তাঁর ছেলেকে শেষ শ্রদ্ধা জানালেন দলের হেভিওয়েট নেতারা।
পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ছিলেন কেওড়াতলা মহাশ্মশানে। অভিজিতকে সেখানেই শেষ বিদায় জানান তিনি। ছিলেন ক্রীড়ামন্ত্রী মদন মিত্রও। গত ১১ ফেব্রুয়ারি হরিমোহন ঘোষ কলেজের উল্টোদিকে একটি নির্মীয়মাণ বহুতলে বোমা বাঁধতে গিয়ে গুরুতর আহত হন অভিজিত্। পুলিস সূত্রে খবর, কলেজ নির্বাচনকে মাথায় রেখেই চলছিল বোমা বাঁধা। অভিজিত্ আহত হলেও, সেই নির্বাচনী হিংসা এড়ানো যায়নি। পরদিনই দুষ্কৃতীর গুলিতে প্রাণ হারান নিরস্ত্র পুলিসকর্মী। তারপর শনিবার মৃত্যু হল অভিজিতেরও। রবিবার অভিজিতের শেষযাত্রায় তৃণমূল নেতামন্ত্রীদের হেভিওয়েট উপস্থিতি শোকের আবহেও জন্ম দিচ্ছে একটি গুঞ্জনের। বোমা বাঁধতে গিয়ে নিহত দলীয় কর্মীকে কার্যত বীরের মর্যাদা দিয়ে বিদায় জানানো কি হিংসার রাজনীতিকেই প্রশয় দেওয়া নয়?



First Published: Sunday, February 17, 2013 - 19:38


comments powered by Disqus