ধর্মঘট প্রসঙ্গে ফের বিতর্কে ব্রাত্য

ধর্মঘট প্রসঙ্গে ফের বিতর্কে ব্রাত্য

ধর্মঘট প্রসঙ্গে ফের বিতর্কে ব্রাত্য মুখ্যমন্ত্রী ধর্মঘটের বিরুদ্ধে বক্তব্য রাখলেও ধর্মঘটের অধিকার নিয়ে ফের একবার মুখ খুলললেন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। সেন্ট লরেন্স স্কুলে একটি অনুষ্ঠানে শিক্ষা মন্ত্রী রবিবার বলেন, ধর্মঘট একটি গনতান্ত্রিক ব্যাপার। ধর্মঘটের দিন কাজে যাওয়া বা না যাওয়া যে কোনও ব্যক্তির ইচ্ছা। তাঁর সংযোজন, সরকার বা কর্তৃপক্ষ আগে থেকে আসার নির্দেশ দিলে  যদি কেউ না মানে তাহলে সরকারেরও মাইনে কাটার অধিকার আছে। তবে শিক্ষামন্ত্রীর এই বক্তব্য ইতিমধ্যেই প্রশ্ন তুলেছে যা গনতান্ত্রিক অধিকার তার খর্ব করে সরকারই বা কেন নির্দেশ জারি করছে। 

বনধের দিন যেকোনও ব্যক্তিরই কলেজে যাওয়া না যাওয়ার অধিকার আছে। গতবছর সারাভারত শিল্প ধর্মঘট নিয়ে এমন মন্তব্য করে রীতিমত বিতর্ক তৈরি করেছিলেন শিক্ষামন্ত্রী। খোদ মুখ্যমন্ত্রী যেখানে ধর্মঘটের বিরুদ্ধে বলছেন, সেখানে শিক্ষামন্ত্রীর এই বক্তব্য ঘিরে প্রশ্ন তৈরি হয়েছিল। আর এই বক্তব্যের জেরে শিক্ষামন্ত্রীকে মুখ্যমন্ত্রীর রোষের মুখে পড়তে হয়েছিল বলেও শোনা যায়। এবারও ফের একবার ধর্মঘটের অধিকারে পক্ষে সওয়াল করলেন শিক্ষা মন্ত্রী।  রবিবার সেন্ট লরেন্স স্কুলের ৭৫ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান শেষে শিক্ষামন্ত্রী ফের বলেন, ধর্মঘট একটি গনতান্ত্রিক ব্যাপার। সেক্ষেত্রে সেদিন কারও কাজে যোগ দেওয়া বা না দেওয়ার অধিকার আছে।

তবে গতবারের বিতর্ক থেকে শিক্ষা নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর এবারের সংযোজন- ধর্মঘট নিয়ে সরকার বা কর্তৃপক্ষ আগে থেকে কোনও নির্দেশ দিলে তা মানতে হবে। সেক্ষেত্রে কেউ তা মানলে মাইনে কাটারও অধিকার গনতান্ত্রিক অধিকার। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে শিক্ষামন্ত্রী নিজেই যখন বনধকে গনতান্ত্রিক অধিকার বলছেন তখন তাঁর সরকার কেন গনতান্তিক অধিকারের বিরুদ্ধে নির্দেশ জারি করছে? তবে কি বিশ্বাস আর কাজের মধ্যেই পার্থক্য রয়েছে? 

First Published: Sunday, February 10, 2013, 23:04


comments powered by Disqus