ভোটের মার বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষায়

Last Updated: Wednesday, June 19, 2013 - 22:09

পঞ্চায়েত ভোটের অনিশ্চয়তায় অথৈ জলে পড়েছে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়। ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণা হওয়ায় ইতিমধ্যেই একবার বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষার দিন পরিবর্তন হয়েছে। ভোটের দিন ফের পরিবর্তন হলে নতুনভাবে দিনক্ষণ ঘোষণা করতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে। অনেকেরই আশঙ্কা ১৭ জুলাইয়ের পরে পরীক্ষা শুরু করতে হলে এ বছরে ফলপ্রকাশই কার্যত অনিশ্চিত হয়ে পড়বে।
দুই, ছয় এবং নয় জুলাই রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোট। ভোটের কথা মাথায় রেখে ইতিমধ্যেই পার্ট ওয়ান এবং পার্ট টুর পরীক্ষার দিন পরিবর্তন করেছে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বর্তমান সূচি অনুযায়ী পার্ট ওয়ানের পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ২ অগাস্ট। শেষ হওয়ার কথা ১৭ অগাস্ট।  বিএ বিএসসির পার্ট টুর পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ১৮ জুলাই শেষ হওয়ার কথা পয়লা অগাস্ট। ইতিমধ্যেই রাজ্যের বিভিন্ন কলেজের দখল নিয়েছে পুলিস। ১৩ জুলাই ভোট প্রক্রিয়া শেষ হয়ে যাওয়ার পর সতেরোই জুলাইয়ের মধ্যে কলেজগুলি ফাঁকা হতে পারে ধরে নিয়েই এই সূচি করা হয়েছিল। কিন্তু ভোটে অনিশ্চয়তার পরিবেশ তৈরি হয়েছে। বারে বারে উঠে আসছে দফা বাড়ানোর কথা। দফা বাড়ালে স্বাভাবিক কারণেই গোটা প্রক্রিয়ার মেয়াদও বেড়ে যাবে। আর সেখানেই প্রমাদ গুনছে বিশ্ববিদ্যালয়। ১৮ জুলাই থেকে যদি আরও দিন দশেক পরে শুরু হয় পরীক্ষা তাহলে বিএ বিএসসি পার্ট ওয়ান ও পার্ট টুর পরীক্ষা কোনওভাবেই সেপ্টেম্বরের আগে শেষ করা যাবে না। সেক্ষেত্রে খাতা পৌঁছে দিতেই অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহ  সময় কেটে যাবে।
 
ফলে  ডিসেম্বর মাসের মধ্যে ফল প্রকাশ করা একপ্রকার অসম্ভবই হয়ে দাঁড়াবে। অন্যান্য বার পার্ট টুর ফল পুজোর আগে এবং পার্ট ওয়ানের ফল নভেম্বর মাসের মধ্যে বেরিয়ে যায়। এবছর প্রথম বর্ষে পার্ট ওয়ানে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় একানব্বই হাজার। পার্ট টুতে সেই সংখ্যা প্রায় চুরাশি হাজার। বিশ্ববিদ্যালয় মনে করছে আঠেরোই জুলাইয়ের পর পরীক্ষা শুরু হলে ডিসেম্বরের মধ্যে পার্ট ওয়ান ও পার্ট টুর পরীক্ষার ফল প্রকাশ সম্ভব হবে না। শুধু তাই নয়, পার্ট টুর ফল ডিসেম্বরের পর প্রকাশিত হলে পার্ট থ্রির ক্লাস করার জন্য সেই সব ছাত্রছাত্রীরা মাত্র চার মাস সময় পাবে। কারণ এপ্রিল মাসে হয় প্রাট থ্রির পরীক্ষা।
 



First Published: Wednesday, June 19, 2013 - 22:09


comments powered by Disqus