পারফরমেন্স খারাপ, মুখ্যমন্ত্রীর ধমক খেলেন মন্ত্রীরা

Last Updated: Tuesday, August 20, 2013 - 23:19

পারফরমেন্স খারাপ। তাই টাউন হলে রিভিউ মিটিংয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে কড়া ধমক খেলেন বহু গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী। কাজ করতে না পারলে ছেড়ে দিন, আমি নিজেই দেখে নেব। শুনতে হল এমন কড়া কথাও। সেইসঙ্গে আরও জোরালো হল রাজ্য মন্ত্রিসভায় রদবদল ইস্যু। নিজের মন্ত্রীদের কাজেই অসন্তুষ্ট মুখ্যমন্ত্রী। মঙ্গলবার টাউন হলে রিভিউ মিটিংয়ে গুরুত্বপূর্ণ বহু মন্ত্রীকেই তাই শুনতে হল ধমক।
শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কাছে মুখ্যমন্ত্রীর প্রশ্ন ছিল, অনেক প্রস্তাব এলেও কাজ সেভাবে কেন হচ্ছে না? যদি না পারেন তাহলে ছেড়ে দিন মন্ত্রিত্ব। আমিই সবটা দেখে নেব।
ফিরহাদ হাকিমকেও শুনতে হয়েছে কড়া কথা। কেএমডিএ-র বহু প্রকল্প আটকে। হিডকোর কাজ খুব ধীরগতিতে হচ্ছে। অর্থদফতর টাকা দিচ্ছে, তবু কাজ হচ্ছে না কেন? কাজ যদি না করতে পারো, তাহলে মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দাও। ববিকে বলেন মুখ্যমন্ত্রী।
বাদ যাননি পরিবহণমন্ত্রীও। জলপথ পরিবহণের এত দুরবস্থা কেন? গ্রামাঞ্চলে ভ্যানোর পারমিট এখনও কেন দেওয়া হয়নি, মদন মিত্রের কাছে এর জবাব দাবি করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
রাস্তাঘাটের বেহাল দশা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর ধমক খেতে হয়েছে পূর্তমন্ত্রী সুদর্শন ঘোষ দস্তিদারকে। তাঁকেও মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন মুখ্যমন্ত্রী।
রোষানলে পড়েন আইনমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যও। কেন রাজ্য এত মামলায় হারছে এবং বহু মামলা জমে রয়েছে কেন, তার জবাব চেয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।
এছাড়া নারী ও শিশুকল্যাণ দফতরের মন্ত্রী সাবিত্রী মিত্রকেও কড়া কথা শুনতে হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর প্রশ্ন ছিল, সরকারি হোমগুলির অবস্থা এত খারাপ কেন? মন্ত্রীকে তাঁর নির্দেশ, এর রক্ষণাবেক্ষণে নজর দাও।
পর্যটন ক্ষেত্রে দফতরের সচিবকে মুখ্যমন্ত্রীর প্রশ্নবানের সামনে পড়তে হয়। উত্তরবঙ্গে বেশ কয়েকটি নতুন পর্যটনকেন্দ্র গড়ে তোলার কথা থাকলেও সেগুলি কেন হয়নি? এত সময় লাগছে কেন, জানতে চান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
 



First Published: Tuesday, August 20, 2013 - 23:19


comments powered by Disqus