১৫ বছরের যুদ্ধের অবসান, যুগান্তকারী রায় সুপ্রিমকোর্টের, অনুরাধা সাহার অকাল মৃত্যুর জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ৫.৯কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ

চিকিৎসার গাফিলতির বিরুদ্ধে যুগান্তকারী রায় দিল সুপ্রিমকোর্ট। ১৯৯৮-এ কলকাতার আমরি হাসপাতালে ভুল চিকিৎসার শিকার হয়ে মাত্র ৩৬ বছর বয়সে মারা যান এনআরআই ডাক্তার অনুরাধা সাহা। আজ তাঁর মৃত্যুর জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও তাঁর চিকিৎসারত তিন ডাক্তারকে দোষী সব্যস্ত করে শীর্ষ আদালত অনুরাধার স্বামী, ডাঃ কুণাল সাহাকে ৫.৯কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ দিয়েছেন। দোষী ডাক্তারদের প্রত্যেককে ১০ লাখ টাকা করে ডাঃ কুণাল সাহাকে দিতে হবে। এখনও পর্যন্ত ভারতে চিকিৎসার গাফিলতির জন্য এটাই সর্বোচ্চ শাস্তি। অনুরাধা সাহার স্বামী জানিয়েছেন ``এই রায়ে আমি খুশী। এই রায় সমাজের কাছে একটি দৃঢ় বার্তা দেবে। আমি দেখতে চাই এবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কী পদক্ষেপ নেয়। আমরা এখানে প্রতিদিন চিকিৎসার গাফিলতির কথা শুনি। কিন্তু বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই দোষীরা ছাড়া পেয়ে যায়।``

Updated: Oct 24, 2013, 12:40 PM IST

চিকিৎসার গাফিলতির বিরুদ্ধে যুগান্তকারী রায় দিল সুপ্রিমকোর্ট। ১৯৯৮-এ কলকাতার আমরি হাসপাতালে ভুল চিকিৎসার শিকার হয়ে মাত্র ৩৬ বছর বয়সে মারা যান এনআরআই ডাক্তার অনুরাধা সাহা। আজ তাঁর মৃত্যুর জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসারত তিন ডাক্তারকে দোষী সব্যস্ত করে শীর্ষ আদালত অনুরাধার স্বামী, ডাঃ কুণাল সাহাকে ৫.৯কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ দিয়েছে। দোষী ডাক্তারদের প্রত্যেককে ১০ লক্ষ টাকা করে ডাঃ কুণাল সাহাকে দিতে হবে। এখনও পর্যন্ত ভারতে চিকিৎসার গাফিলতির জন্য এটাই সর্বোচ্চ শাস্তি। অনুরাধা সাহার স্বামী জানিয়েছেন ``এই রায়ে আমি খুশি। এই রায় সমাজের কাছে একটি দৃঢ় বার্তা দেবে। আমি দেখতে চাই এবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কী পদক্ষেপ নেয়। আমরা এখানে প্রতিদিন চিকিৎসার গাফিলতির কথা শুনি। কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দোষীরা ছাড়া পেয়ে যায়।``
১৯৯৮-এর মে মাসে এনআরআই চিকিৎসক দম্পতি কুণাল ও অনুরাধা সাহা কলকাতায় ছুটি কাটাতে আসেন। কলকাতায় অনুরাধা টক্সিক এপিডারমাল নেক্রোসিস নামের বিরল এবং ভয়ঙ্কর রোগের শিকার হন। কলকাতার আমরিতে প্রথমে ভর্তি হন অনুরাধা। কিন্তু এখানে তাঁর অবস্থার বিন্দুমাত্র উন্নতি না হওয়ায় অনুরাধাকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে মুম্বইয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই এক হাসপাতালে ২৮মে মারা যান অনুরাধা।
১৯৯৮ সালেই অনুরাধার স্বামী কুণাল সাহা আমরির বিরুদ্ধে চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। তাঁর দীর্ঘ ১৫ বছরের লড়াইয়ের অবসান হল আজ। অনুরাধার অকাল মৃত্যুর জন্য দায়ীরা শাস্তি পেতে চলেছেন। অনুমান করা হচ্ছে এই রায় এদেশের বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলিতে চিকিৎসার অব্যবস্থার চিত্রটা কিছুটা হলেও বদলে দিতে পারবে।