ফেরার মুন্না, খালি বরো চেয়ারম্যানের পদ, বিপাকে সাধারণ মানুষ

গার্ডেনরিচকাণ্ডে অন্যতম অভিযুক্ত কলকাতা পুরসভার ১৫ নম্বর বরোর চেয়ারম্যান মহম্মদ ইকবাল ওরফে মুন্না  ফেরার  চোদ্দই ফেব্রুয়ারি থেকে। তেরোই ফেব্রুয়ারি বরো এলাকায় উদ্বোধন হওয়ার কথা ছিল একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের। মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের উদ্বোধন করার কথা ছিল ওই হাসপাতালের। কিন্তু এসআই খুনের ঘটনার পর খোলেনি ওই হাসপাতাল। স্থানীয় মানুষের অভিযোগ, বরো চেয়ারম্যান উধাও হওয়ায় আটকে রয়েছে ওই অঞ্চলে পুরসভার কাজকর্ম। অন্য কাউকে বরো চেয়ারম্যান করার উদ্যোগও দেখাচ্ছে না পুরসভা। পরিস্থিতি নিয়ে ক্ষুব্ধ এলাকার বাসিন্দারা।

Updated: Feb 24, 2013, 02:11 PM IST

গার্ডেনরিচকাণ্ডে অন্যতম অভিযুক্ত কলকাতা পুরসভার ১৫ নম্বর বরোর চেয়ারম্যান মহম্মদ ইকবাল ওরফে মুন্না  ফেরার  চোদ্দই ফেব্রুয়ারি থেকে। তেরোই ফেব্রুয়ারি বরো এলাকায় উদ্বোধন হওয়ার কথা ছিল একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের। মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের উদ্বোধন করার কথা ছিল ওই হাসপাতালের। কিন্তু এসআই খুনের ঘটনার পর খোলেনি ওই হাসপাতাল। স্থানীয় মানুষের অভিযোগ, বরো চেয়ারম্যান উধাও হওয়ায় আটকে রয়েছে ওই অঞ্চলে পুরসভার কাজকর্ম। অন্য কাউকে বরো চেয়ারম্যান করার উদ্যোগও দেখাচ্ছে না পুরসভা। পরিস্থিতি নিয়ে ক্ষুব্ধ এলাকার বাসিন্দারা।
গার্ডেনরিচে পুলিস খুনের ঘটনায় উঠে আসছে একের পর এক তৃণমূল নেতার নাম। তাঁরা প্রত্যেকেই পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের ঘনিষ্ঠ ও স্নেহধন্য বলেই অভিযোগ। মুন্না, সানু,অনিল, টাব্বু সহ এলাকার ত্রাস সবার মাথাতেই যে ববি হাকিমের স্নেহের হাত হয়েছে এখন প্রকাশিত সেই খবরও। ফলে দলের তরফ থেকে বিষয়টিকে আর কোনও ভাবেই চেপে রাখা যাচ্ছে না।
পুলিস কমিশনারকে বদলি করে এবং সিআইডিকে তদন্তভার দিয়ে অভিযুক্তদের আড়াল করা হয়েছে। কিন্তু পুরমন্ত্রীর মদতেই যে এই বাহিনীর এমন বেপরোয়া হয়ে ওঠা তা আরও স্পষ্ট হয়েছে। মহম্মদ ইকবাল ওরফে মুন্না। হরিমোহন ঘোষ কলেজের সামনে পুলিসকর্মী খুনের দিন তাঁর তত্পরতা ছিল চোখে পড়ার মতো।