দল থেকে সাসপেন্ড করা হল সাংসদ কুণাল ঘোষকে, ক্ষমা চেয়ে রক্ষা পেয়ে গেলেন তাপস- শতাব্দী

দলের বিরুদ্ধে মুখ খোলায় তৃণমূল থেকে সাসপেন্ড করা হল সাংসদ কুণাল ঘোষকে। আজ দুপুরে তৃণমূল ভবন সাংবাদিক সম্মেলনে এই কথা ঘোষণা করলেন দলের মহাসচিব পার্থ চ্যাটার্জি। সারদাকাণ্ডে মুখ খোলায় কুণালকে এই শাস্তি দেওয়া হল।

Updated: Sep 28, 2013, 03:59 PM IST

দলের বিরুদ্ধে মুখ খোলায় তৃণমূল থেকে সাসপেন্ড করা হল সাংসদ কুণাল ঘোষকে। আজ দুপুরে তৃণমূল ভবন সাংবাদিক সম্মেলনে এই কথা ঘোষণা করলেন দলের মহাসচিব পার্থ চ্যাটার্জি।
দেখুন পার্থ চ্যাটার্জি কী বললেন

পার্থ চ্যাটার্জি বললেন, 'দলবিরোধী কাজ করায় কুণাল ঘোষকে সাসপেন্ড করা হল।' কুণালের মন্তব্যে দলের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলেও জানালেন তৃণমূল মহাসচিব। তবে দলের বিরুদ্ধে তোপ দেগেও রক্ষা পেয়ে গেলেন দুই সাংসদ তাপস পাল ও শতাব্দী রায়। তাপস পাল-শতাব্দী রায় মমতার কাছে চিঠি লিখে অনুতপ্ত বোধ করায় তাদের শাস্তি দেওয়া হল না বলেও তৃণমূল মহাসচিব জানান।

দেখুন কী বলছেন কুণাল ঘোষ

বিচার না করেই শাস্তি দেওয়া হল। শোকজের চিঠি আমি পাইনি। বলে জানালেন নির্বাসিত সাংসদ কুণাল ঘোষ।
ক দিন আগেই দলের তিন সাংসদকে পাশে বসিয়ে কুণাল প্রকাশ্যে দলের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন। দল তাঁকে শোকজের চিঠি পাঠায়। তবু কুণাল বিরত হননি।
কাজে খুশি হয়ে সাংবাদিক কুণাল ঘোষকে রাজ্যসভার সাংসদ করেন স্বয়ং মমতা ব্যানার্জি। এরপর সারদাকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ে তাঁর নাম। দলের কাছে ক্রমশই অস্বস্তির নাম হয়ে ওঠেন তিনি। কুণাল নিজে সারদাকাণ্ডে সিবিআই তদন্ত দাবি করেছিলেন, দলের অনেকে জড়িয়ে পড়তে পারে বলে তৃণমূল নেত্রী এতে ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন।
কোণঠাসা হয়ে পড়ে কুণালও সারদা কাণ্ডে একের পর এক নেতা-মন্ত্রীর নাম নিতে শুরু করেন। ঘুরিয়ে দলনেত্রীর বিরুদ্ধে তোপ দাগেন। এরপরই এল নির্বাসনের শাস্তি। এখন প্রশ্ন এ বার কী তাহলে গ্রেফতার হতে চলেছেন কুণাল!