ফের শ্লীলতাহানি এনআরএসে

Last Updated: Wednesday, March 6, 2013 - 21:40

দুদিনের মাথায় ফের এনআরএস হাসপাতালে শ্লীলতাহানির ঘটনা ঘটল। এক সন্তানসম্ভবা মহিলার শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠলো হাসাপাতালের সাফাইকর্মী পাঁচু বাগদির বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত পাঁচু বাগদিকে গ্রেফতার করেছে এন্টালি থানার পুলিস।
সন্তানসম্ভবা মহিলাকে একটানা প্রায় ছঘণ্টা জেরা করায় প্রশ্নের মুখে পুলিস প্রশাসন। মঙ্গলবার হাসপাতালের আউটডোরে চিকিত্‍সা করাতে আসেন প্রগতি ময়দান থানা এলাকার বাসিন্দা এক মহিলা। তাঁকে এক্সরে করাতে বলেন চিকিত্সক।  অভিযোগ, দুপুর দেড়টা নাগাদ এক্স-রে রুমে নিয়ে গিয়ে ওই মহিলার  শ্লীলতাহানি করে হাসপাতালেরই এক সাফাইকর্মী পাঁচু বাগদি।
এরপরই  অন্যান্য কর্মীদের হাতে ধরা পড়ে যায় পাঁচু। ঘটনার পর হাসপাতাল সুপারের কাছে এবং হাসপাতালের পুলিসফাঁড়িতে অভিযোগ দায়ের করা হয়। ডিসি ইএসডির উপস্থিতিতে থানায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় পাঁচুকে। 
দুদিন আগেই অ্যানাস্থেসিয়া করার সময় এন আর এস হাসপাতালের ওটিতে এক রোগিণীর শ্লীলতাহানির ঘটনায় অভিযুক্ত হয় হাসপাতালের ওয়ার্ড বয় রবি প্রামানিক। মঙ্গলবারই অভিযুক্ত ওয়ার্ডবয়কে গ্রেফতার করে পুলিস। একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হওয়ায় প্রশ্নের মুখে এনআরএসের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। তবে এনিয়ে কোনও সদুত্তর দিতে পারেননি হাসপাতালের সুপার। শুধুমাত্র অভিযুক্তকেই নয়, জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় নিগৃহীত মহিলাকেও। দুপুর দেড়টা থেকে পৌনে সাতটা। টানা প্রায় ছ ঘণ্টা ধরে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিস। ঘটনার পর একজন সন্তানসম্ভবা মহিলার শারীরিক পরীক্ষা না করে কিভাবে তাঁকে একটানা জেরা করা হল তাও আবার উচ্চপদস্থ আধিকারিকদের উপস্থিতিতে? বুধবারের ঘটনার পর  পুলিসের এই অমানবিক মুখ নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। সরকারি হাসপাতালে চিকিত্সা পরিষেবা নিয়ে অভিযোগ দীর্ঘদিনের। সরকারি হাসপাতালে রোগিনীর সম্ভ্রমও এবার বিপন্ন। এনআরএস হাসপাতালের পরপর ঘটনা অন্তত তাই বলছে।



First Published: Wednesday, March 6, 2013 - 21:49


comments powered by Disqus