পার্কস্ট্রিট কাণ্ডে মুখ্যমন্ত্রীর দাবি খণ্ডন চার্জশিটে

পার্কস্ট্রিট কাণ্ডে ব্যাঙ্কশাল কোর্টে চার্জশিট পেশ করল পুলিস। ঘটনার দিন ওই মহিলা গণধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন বলে উল্লেখ রয়েছে চার্জশিটে। নাম রয়েছে মোট পাঁচ অভিযুক্তের। যদিও এরমধ্যে মূল অভিযুক্ত কাদের খান-সহ দুজন এখনও ফেরার।

Updated: May 10, 2012, 06:43 PM IST

পার্কস্ট্রিট কাণ্ডে ব্যাঙ্কশাল কোর্টে চার্জশিট পেশ করল পুলিস। ঘটনার দিন ওই মহিলা গণধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন বলে উল্লেখ রয়েছে চার্জশিটে। নাম রয়েছে মোট পাঁচ অভিযুক্তের। যদিও এরমধ্যে মূল অভিযুক্ত কাদের খান-সহ দুজন এখনও ফেরার। ঘটনার পরপরই মুখ্যমন্ত্রী একে সাজানো ঘটনা বলে দাবি করেছিলেন। তবে বৃহস্পতিবার পুলিসের পেশ করা চার্জশিটে মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের উল্টো কথাই বলা হয়েছে।
গত পাঁচই ফেব্রুয়ারি রাতে পার্ক স্ট্রিট অঞ্চলে গাড়ির মধ্যে গণধর্ষণের শিকার হন এক মহিলা। ১৮ ফেব্রুয়ারি গ্রেফতার হয় তিন অভিযুক্ত রুমান খান, নাসির খান ও সুমিত বাজাজ। যে গাড়িতে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে, সেই গাড়িটিও উদ্ধার করে পুলিস। ঘটনার তিন মাস পর বৃহস্পতিবার অবশেষে এই মামলার চার্জশিট পেশ করল কলকাতা পুলিসের গোয়েন্দা বিভাগ। ব্যাঙ্কশাল কোর্টে পেশ করা চার্জশিটে গণধর্ষণের অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে নেওয়া হয়েছে। যদিও ঘটনার পরপরই মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেছিলেন, ধর্ষিতা মহিলা সাজানো অভিযোগ এনেছেন। তিনি বলেন, রাজ্য সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করাই অভিযোগকারীর আসল উদ্দেশ্য। এরপর সাংবাদিক সম্মেলন
করে মুখ্যমন্ত্রীর কথায় সায় দেন পুলিস কমিশনারও। সেই সময় ধর্ষিতা মহিলার পাশে দাঁড়িয়েছিলেন ততকালীন গোয়েন্দা প্রধান দময়ন্তী সেন। রাজ্যজুড়ে বিতর্কের মধ্যে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় দময়ন্তী সেনকে। সরকারের দাবি ছিল, রুটিনমাফিক বদলি করা হয়েছে তাঁকে। যদিও বিভিন্ন মহলের মত, পার্কস্ট্রিট কাণ্ডে মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের বিরুদ্ধে যাওয়াতেই গোয়েন্দা প্রধানের পদ থেকে সরতে হয়েছে দময়ন্তী সেনকে। বৃহস্পতিবার পুলিসের চার্জশিটেও মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যকে খণ্ডন করা হল। চার্জশিটে বলা হয়েছে, গণধর্ষনেরই স্বীকার হয়েছেন ওই মহিলা। মূল অভিযুক্ত হিসেবে কাদের খানের নাম উল্লেখ করা হয়েছে চার্জশিটে। কাদের খান এখনও ফেরার। মহম্মদ আলি নামে আরও এক অভিযুক্তও এখনও পর্যন্ত পুলিসের হাতে ধরা পড়েনি।