সততার সঙ্গে কাজ করতে গিয়েছিলাম বলেই অসুবিধা। পদত্যাগ করতে বাধ্য হলাম: যাদবপুরের পদত্যাগী উপাচার্য

সততার সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে সম্মুখীন হতে হয়েছে নানা অসুবিধার। মূলত সেই কারণেই পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছেন তিনি। আজ সাংবাদিক সম্মেলন করে একথা বললেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন অধ্যক্ষ শৌভিক ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, "স্বপ্ন অপূর্ণ রেখেই ফিরে যেতে হচ্ছে। পাশাপাশি আগামিদিনে খড়গপুর আইআইটিতেই ফিরবেন বলেও জানান তিনি।"

Updated: Oct 22, 2013, 02:34 PM IST

সততার সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে সম্মুখীন হতে হয়েছে নানা অসুবিধার। মূলত সেই কারণেই পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছেন তিনি। আজ সাংবাদিক সম্মেলন করে একথা বললেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন অধ্যক্ষ শৌভিক ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, "স্বপ্ন অপূর্ণ রেখেই ফিরে যেতে হচ্ছে। পাশাপাশি আগামিদিনে খড়গপুর আইআইটিতেই ফিরবেন বলেও জানান তিনি।"
গতকাল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য পদ থেকে ইস্তফা দেন শৌভিক ভট্টাচার্য। পুজোর আগেই নিজের পদত্যাগপত্র রাজ্যপালের কাছে পাঠিয়ে দেন তিনি। রাজভবনসূত্রের খবর পদত্যাগপত্র প্রত্যাহারের জন্য তাঁকে বেশ কয়েকবার অনুরোধ করা হয়েছিল। কিন্তু নিজের পদত্যাগপত্র প্রত্যাহার করতে রাজি হননি শৌভিকবাবু। শৌভিকবাবুর পদত্যাগপত্র ঘিরে তৈরি হয়েছিল জল্পনা।
তাঁর নিয়োগ ঘিরে সরকারের তরফে আপত্তি ছিল। সরকারের পছন্দের লোককে নিয়োগ না করে রাজ্যপাল শৌভিকবাবুকে নিয়োগ করায় গোটা নিয়োগ প্রক্রিয়াই শ্লথ করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল সরকারের বিরুদ্ধে। নিয়োগের আগে শৌভিকবাবুকে ডেকে নজিরবিহীনভাবে কথাও বলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী।
দায়িত্ব নেবার পর থেকে শৌভিকবাবুর সঙ্গে বেশকিছু বিষয়ে সরকারের মতপার্থক্য সৃষ্টি হয়। তিনি কাজ করতে পারছিলেন না বলে ঘনিষ্ঠমহলে তাঁর প্রাক্তন সহকর্মীদের কাছে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন শৌভিক ভট্টাচার্য।