দল নির্দেশ দিলে শোভনদেবের কাছে ক্ষমা চাইবেন মম্মথ

দল নির্দেশ দিলে তিনি ক্ষমা চাইতে প্রস্তুত। আজ একথা জানিয়ে দিলেন শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় নিগ্রহের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মন্মথ বিশ্বাস। কিন্তু, ঘটনার চারদিন কেটে গেলেও দল এখনও কেন সেই নির্দেশ পাঠালো না তা নিয়ে এবার প্রশ্ন উঠছে। অন্যদিকে, শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের অনুগামীরা সোমবার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবাদ মিছিলে সামিল হন।

Updated: Dec 3, 2012, 10:42 PM IST

দল নির্দেশ দিলে তিনি ক্ষমা চাইতে প্রস্তুত। আজ একথা জানিয়ে দিলেন শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় নিগ্রহের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মন্মথ বিশ্বাস। কিন্তু, ঘটনার চারদিন কেটে গেলেও দল এখনও কেন সেই নির্দেশ পাঠালো না তা নিয়ে এবার প্রশ্ন উঠছে। অন্যদিকে, শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের অনুগামীরা সোমবার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবাদ মিছিলে সামিল হন।
শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়কে হেনস্থার ঘটনায় তৃণমূল কংগ্রেসের অবস্থান ঘিরে ফের একবার বিতর্ক তৈরি হল। মূল অভিযুক্ত মন্মথ বিশ্বাসের দাবি, শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের কাছে তিনি ক্ষমা চাইতে প্রস্তুত। ঘটনাস্থলে সেদিন তিনি ছিলেন না বলে দাবি করলেও অভিযুক্তের বক্তব্য তাঁর বা তাঁর দলের অন্য কারও আচরণে শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় আহত হলে তাঁর ক্ষমা চাওয়ার ক্ষেত্রে কোনও সমস্যা নেই। তবে সেক্ষেত্রে দলকেই তাঁকে নির্দেশ দিতে হবে বলে দাবি মন্মথ বিশ্বাসের । ফলে স্বভাবতই প্রশ্ন উঠছে ঘটনার পর চারদিন কেটে গেলেও কেন দলের পক্ষ থেকে এখনও সেই নির্দেশ দেওয়া হল না। শুধু তাই নয়, গোটা ঘটনায় মন্মথ বিশ্বাসের নামে বারবার শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় অভিযোগ তুললেও দলের পক্ষ থেকে এবিষয়ে তার কাছে এখনও পর্যন্ত কোনও কৈফিয়তও তলব করা হয়নি বলেও দাবি অভিযুক্তের।
এদিকে সোমবারই শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের অনুগামীরা কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবাদ মিছিল করেন। তৃণমূল কংগ্রেস এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ গোটা ঘটনায় কেন ব্যবস্থা নিল না সেই বিষয়ে সরব হন তাঁরা। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে। কিন্তু শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় যে দলের প্রথম শ্রেনীর নেতা সেই  তৃণমূল কংগ্রেস এখনও গোটা বিষয় নিয়ে চুপ। আর দলের এই নীরবতা ঘিরেই তৈরি হয়েছে বিতর্ক। তবে কি দলের কাছে শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছেন মন্মথ বিশ্বাস? প্রশ্ন উঠছে দলের অন্দরেই।

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. You can find out more by clicking this link

Close