সারদাকাণ্ডে সিবিআই নয়, নির্দেশ হাইকোর্টের

সারদা কাণ্ডের তদন্তের ভার সিবিআইকে দেওয়া হবে কি না, আজ তা নিয়ে রায় দেবে কলকাতা হাইকোর্ট। বিচারপতি অসীমকুমার  বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বিচারপতি মৃণালকান্তি চৌধুরীর  ডিভিশন বেঞ্চ  আজ এই রায় ঘোষণা করবেন। সারদা মামলায় সিবিআই তদন্ত চেয়ে  হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেছিলেন আইনজীবী বাসবী রায় চৌধুরী। সেই মামলারই রায় দেবে দুই বিচারপতিকে নিয়ে গঠিত ডিভিশন বেঞ্চ।

Updated: Jun 19, 2013, 09:52 AM IST

আপাতত সিবিআই নয়, সারদার চিটফান্ড কেলেঙ্কারির তদন্ত করবে রাজ্যই। আজ এই রায় দিল কলকাতা হাইকোর্ট। যদিও তদন্তের ওপর নজরদারি রাখবে আদালত। তবে ভবিষ্যতে সিবিআই তদন্তের পথ খোলা থাকবে বলেও জানিয়ে দিয়েছে ডিভিশন বেঞ্চ।
সারদা কাণ্ডে সর্বস্বান্ত হন রাজ্যের কয়েকলক্ষ মানুষ। এতবড় কেলেঙ্কারির ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবি ওঠে। জনস্বার্থে দায়ের করা সেই মামলার রায় ছিল বুধবার। কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অসীম বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মৃণালকান্তি চৌধুরীর ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়ে দেয়, আপাতত সিবিআই নয়, সারদার চিটফান্ড কেলেঙ্কারির তদন্ত করবে রাজ্যই। তবে ভবিষ্যতে সিবিআই তদন্তের পথ খোলা থাকবে বলে জানিয়ে দিয়েছে ডিভিশন বেঞ্চ। এই রায়ে মানুষের আস্থা হারাবে বলে মনতব্য করেছেন মামলার আবেদনকারী আইনজীবী।
 
সুদীপ্ত সেনের হলফনামা নিয়ে বহু বিতর্ক দেখা দিলেও এ দিন আদালত সুদীপ্ত সেনের অধিকাংশ দাবিই মেনে নিয়েছে।
 
1) প্রতিমাসের শেষ দিনের মধ্যে তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে রিপোর্ট দেবে স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন টিম বা সিট।
 
2) অন্যান্য কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলিকে প্রয়োজনমতো এবং আইন অনুসারে সাহায্য করবে সিট।
 
3) সারদা সংক্রান্ত যাবতীয় মামলা শোনার জন্য প্রয়োজনে হাই কোর্টের সাহায্য নিয়ে একটি বিশেষ আদালত তৈরি করতে হবে। যে আদালতের চার্জ গঠনের ক্ষমতা থাকবে।
 
4) যেহেতু সিট মূলত বিধাননগর কমিশনারেটের সহয়োগিতায় কাজ করছে তাই বিধাননগর কমিশনারেটকে প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো দেবে রাজ্য এবং বিশেষ আদালতটি বিধাননগরে তৈরি করলেই ভাল হয়।
 
5) সারদার মতো অন্যান্য গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হলে তার বিচারের জন্য আরও একটি বিশেষ আদালত গড়ার সম্ভাবনা খতিয়ে দেখার নির্দেশ।
 
6) কমিশন সারদার সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত এবং বিক্রি করে আমানতকারীদেরর টাকা ফেরত দেওয়ার ব্যবস্থা করবে। 
 
7) সারদার সম্পত্তি উদ্ধার এবং বকেয়া পাওনা আদায়ের ক্ষমতা দেওয়া হোক কমিশনকে।
 
8) কমিশনের অনুমতি ছাড়া সারদার কোনও অ্যাকাউন্ট বা ডিরেক্টরদরে ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে লেনদেন করা যাবে না।
 
9) যে কোনও রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাঙ্কে একটি অ্যাকাউন্ট খুলে কমিশন বা কমিশন মনোনীত কোনও ব্যক্তি সারদা সংক্রান্ত টাকার লেনদেন করতে পারেন।
10) আমানতকারীদের আবেদন খতিয়ে দেখে আমানতকারীদের তালিকা তৈরি করবে কমিশন।
11) সেই তালিকা অনুসারে আমানতকারীদের টাকা ফেরতের বন্দোবস্ত করবে কমিশন।
 
এরমধ্যে অধিকাংশ দাবিই করা হয়েছিল সারদাকর্তা সুদীপ্ত সেনের হলফনামায়। আদালতের এদিনের রায়ে তাই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মামলার আবেদনকারী আইনজীবীরা।