সারদা কাণ্ড: কুণাল ঘোষকে নিয়ে সারাদিন নাটকে মত্ত বিধাননগর পুলিস

সারদা কাণ্ডে বিধাননগর আদালতে শুনানি। কুণাল ঘোষকে আদালতে হাজির করার কথা বিধাননগর পুলিসের। অথচ কুণালকে আনতে দিনভর দমদম জেলে গেলই না বিধাননগর পুলিস। ফলে হল না মামলার শুনানি। কেন গেল না পুলিস? তাদের প্রথম ব্যাখ্যা, বাহিনী চেয়ে আবেদনই করেনি জেল কর্তৃপক্ষ। পুলিসের পরের ব্যাখ্যা, পুলিসকর্মীর অভাব, তাই কুণালকে আনার ব্যবস্থা করা যায়নি। কোন ব্যাখ্যা সঠিক ? এবিষয়ে সম্পূর্ণ নীরব বিধাননগরের গোয়েন্দা প্রধান।

Updated: May 7, 2014, 09:20 PM IST

সারদা কাণ্ডে বিধাননগর আদালতে শুনানি। কুণাল ঘোষকে আদালতে হাজির করার কথা বিধাননগর পুলিসের। অথচ কুণালকে আনতে দিনভর দমদম জেলে গেলই না বিধাননগর পুলিস। ফলে হল না মামলার শুনানি। কেন গেল না পুলিস? তাদের প্রথম ব্যাখ্যা, বাহিনী চেয়ে আবেদনই করেনি জেল কর্তৃপক্ষ। পুলিসের পরের ব্যাখ্যা, পুলিসকর্মীর অভাব, তাই কুণালকে আনার ব্যবস্থা করা যায়নি। কোন ব্যাখ্যা সঠিক ? এবিষয়ে সম্পূর্ণ নীরব বিধাননগরের গোয়েন্দা প্রধান।

সারদা যোগ নিয়ে বারবারই সরব হয়েছেন কুণাল ঘোষ। ২৯ এপ্রিল বিধাননগর আদালতে তাঁকে পেশ করার সময়ই মুখ খুলেছিলেন তিনি।

বুধবার ছিল বিধাননগর আদালতে সারদা কান্ডের একটি মামলার শুনানি। ওই মামলায় কুণাল ঘোষকে আদালতে হাজির করা নিয়ে দিনভর চলল নাটক। কুণালকে আদালতে আনার জন্য বিধাননগর পুলিস গেলই না দমদম জেলে। কিন্তু কেন গেল না পুলিস?

বিধাননগর পুলিসের সাফাই, তাদের কাছে বাহিনী চেয়ে আবেদন জানায়নি দমদম জেল কর্তৃপক্ষ।

জেল কর্তৃপক্ষের পাল্টা দাবি, মঙ্গলবারই বাহিনী চেয়ে রিকুউজিশন পাঠানো হয়েছিল বিধাননগর কমিশারেটে।

এই নাটকের মাঝেই আদালতে মামলার শুনানি শুরু হয়ে যায়। অভিযুক্ত কুণাল ঘোষ আদালতে হাজির না থাকায় মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য হয়েছে বিশে মে। এরপরেই বিধাননগর পুলিসের চিঠি যায় দমদম জেলে। জানানো হয়, পুলিসকর্মীর অভাব থাকাতেই কুণাল ঘোষকে আদালতে হাজির করতে পারেনি তারা।

যদিও এবিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি বিধাননগরের গোয়েন্দা প্রধান অর্নব ঘোষ।

তবে পুলিসের এই ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। আইনজীবী মহলের অনুমান, ভোটের মধ্যেই কুনাল ঘোষ ফের শাসক বিরোধী কোনও মন্তব্য করে বসলে তা অস্বস্তি বাড়াত শাসকদলের। সেটা ঠেকাতেই আদালতে আনা হল না কুণালকে।

অন্যদিকে সারদাকাণ্ডে বৃহস্পতিবার বিধাননগর থানার জেরার মুখোমুখি হন মাতঙ্গ সিংয়ের প্রাক্তন স্ত্রী মনোরঞ্জনা। জেরা শেষে মনোরঞ্জনা জানান,সারদার চ্যানেল সংক্রান্ত বিষয়েই বিধাননগর পুলিস তাকে জেরা করেছে।

সারদার চ্যানেল সংক্রান্ত বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মনোরঞ্জনাকে আবারও ডাকা হবে বলে জানিয়েছেন গোয়েন্দা প্রধান অর্ণব ঘোষ।