বাজি বচসায় খুন ১, 'আইনভাঙা'য় গ্রেফতারের সংখ্যা ৭৫০ ছাপিয়ে গেল, শব্দবিধি ভাঙায় গ্রেফতার ৪০০ জন, রাতভর চলল শব্দবাজির তাণ্ডব

Last Updated: Sunday, November 3, 2013 - 08:39

বাজি পোড়ানো নিয়ে বচসার জেরে খুন হতে হল এক যুবককে। উত্তর ২৪ পরগনার অশোক নগরের আশরফাবাদের বাসিন্দা ওই যুবকের নাম পিন্টু বিশ্বাস। অভিযোগ গতকাল রাতে পিন্টুর সঙ্গে বচসা বাঁধে একদল দুষ্কৃতীর। সেই সময়ই দুষ্কৃতীরা শাবল দিয়ে পিন্টু বিশ্বাসের মাথায় আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তাঁর। এই ঘটনয়া ৬ জনের নামে অভিযোগ দায়ের করেছে নিহতের পরিবার। ঘটনায় যুক্ত থাকার অভিযোগে এখনও পর্যন্ত দুই দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করেছে পুলিস। যদিও প্রাথমিক তদন্তে পুলিসের দাবি, পুরানো কোনও শত্রুতার জেরেই খুন হতে হয়েছে পিন্টু বিশ্বাসকে।
অন্য দিকে আলোর ফোয়ারায় যখন ভাসছে গোটা শহর, তখনই কলকাতায় আইন ভাঙার খেলায় নামল অনেকেই। কলকাতা পুলিসও রীতিমত নাজেহাল আইন ভাঙার খেলায়। তাই কালীপুজোর শহরে গ্রেফতারের সংখ্যা ৭৫০ ছাপিয়ে গেল। শব্দবিধি ভাঙায় গ্রেফতার হলেন ৪০০ জন। আইন ভাঙায় গ্রেফতার হয়েছেন ৩৭১ জন। অর্থাত্‍ কালীপুজোর রাতে মোট মোট ৭৭১ জনকে গ্রেফতার করে কলকাতা পুলিস।
এ দিকে কালীপুজোয় কলকাতায় শব্দাসূর থেকে মুক্তি পেল না। বেহালা, খিদিরপুর, যাদবপুর, ইএম বাইপাস, মেটিয়াব্রুজের পাশাপাশি কসবা, বালিগঞ্জ, টালিগঞ্জ, সিঁথি, বেলগাছিয়া, লেকটাউন জুড়ে চলল শব্দবাজির ভীষণ আওয়াজ। রাত যত বেড়েছে শব্দবাজির তাণ্ডব তত বেড়েছে। বেহালার বেশ কয়েকটি এলাকায় তো রাতের দিকে শব্দবাজির বিকট আওয়াজে অনেকে ঘুমোতে পারেননি বলেও অভিযোগ জানালেন।
শুধু কলকাতা বা তার পাশ্ববর্তী এলাকা নয় দক্ষিণবঙ্গের অনেক জেলাতেই শব্দবাজির দাপট ছিল অসহনীয় পর্য়ায়ে। হাওড়া, হুগলি থেকে সবচেয়ে বেশি অভিযোগ আসে।
বিজ্ঞাপন, প্রচার, পুলিসি ধরপাকড় সত্ত্বেও কেন শব্দবাজির দাপট কমানো যাচ্ছে না তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। অনেকেই বলছেন, শব্দবাজির দাপট কমেছে তবে যতটা আছে তার কারণ শব্দাবাজিতে মানুষের আসক্তি।



First Published: Sunday, November 3, 2013 - 16:25


comments powered by Disqus