সুদীপ্তকে ম্যারাথন জেরা পুলিসের

সারদাগোষ্ঠীর কর্ণধার সুদীপ্ত সেনকে চার ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে জেরা করল পুলিস। গতকাল রাতে নিউটাউন থানায় গিয়ে সুদীপ্ত সেনকে জেরা করেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার অতিরিক্ত পুলিস সুপার, ডিএসপি ডিইবি, এসডিপিও ক্যানিং এবং বারুইপুরের আইসি। জেরায় বেশকিছু নতুন তথ্য পাওয়া গেছে বলে দাবি পুলিসের।

Updated: May 21, 2013, 10:19 AM IST

সারদাগোষ্ঠীর কর্ণধার সুদীপ্ত সেনকে চার ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে জেরা করল পুলিস। গতকাল রাতে নিউটাউন থানায় গিয়ে সুদীপ্ত সেনকে জেরা করেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার অতিরিক্ত পুলিস সুপার, ডিএসপি ডিইবি, এসডিপিও ক্যানিং এবং বারুইপুরের আইসি। জেরায় বেশকিছু নতুন তথ্য পাওয়া গেছে বলে দাবি পুলিসের।
রবিবার বারুইপুর আদালতে পেশ করা হলে সারদাকর্তা সুদীপ্ত সেনের দশ দিনের পুলিস হেফাজত মঞ্জুর করেন বিচারক। এরপর থেকে সুদীপ্ত সেনের ঠিকানা হয় নিউটাউন থানার লকআপ। সোমবার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ নিউটাউন থানায় গিয়ে সুদীপ্ত সেনকে জেরা করেন দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার অতিরিক্ত পুলিস সুপার কঙ্কন প্রসাদ বারুই, ডিএসপি ডিইবি সিকে দাস মহাপাত্র, এসডিপিও ক্যানিং বিশ্বজিত মাহাত এবং বারুইপুর থানার আইসি সুব্রত কংসবণিক।  প্রায় চার ঘণ্টা ধরে জেরা করা হয় সুদীপ্ত সেনকে।
জেরায় বেশকিছু নতুন তথ্য মিলেছে বলে দাবি করেছে পুলিস। শুধুমাত্র দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা থেকেই কয়েক কোটি টাকা সারদার তহবিলে জমা পড়ত। বারুইপুরের সারদার ডিভিশনাল ম্যানেজার অরিন্দম দাস ওরফে বুম্বা এই টাকা সংগ্রহের ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা নিয়েছিল। পরবর্তী ক্ষেত্রে বুম্বা  সুদীপ্ত সেনের সই জাল করে আমানতকারীদের থেকে টাকা তোলে বলেও অভিযোগ করেন সুদীপ্ত সেন। বুম্বা এখন পলাতক। সোমবারের জেরায় বুম্বা সম্পর্কেও আরও কিছু তথ্য সুদীপ্ত সেন দিয়েছেন বলেও দাবি করেছে পুলিস। সুদীপ্ত সেনের পাশাপাশি সোমবার রাতে অসম ও শিলিগুড়ির বেশ কয়েকজন হাইপ্রোফাইল এজেন্টকেও জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিস।