আক্রান্ত নিহত পরিবেশবিদ তপন দত্তের ভাগ্নে

আক্রান্ত নিহত পরিবেশবিদ তপন দত্তের ভাগ্নে

আক্রান্ত নিহত পরিবেশবিদ তপন দত্তের ভাগ্নেআবারও সংবাদ শিরোনামে হাওড়ার পরিবেশকর্মী তপন দত্ত হত্যা মামলা। এবার আক্রান্ত হলেন নিহত পরিবেশকর্মী তপন দত্তের ভাগ্নে পিন্টু ধর। বৃহস্পতিবার রাত ১০.৩০ নাগাদ বন্ধুদের সঙ্গে ঠাকুর দেখে ফিরছিলেন পিন্টু। সে সময় বালি লেভেল ক্রসিংয়ের সামনে তিনজন দুষ্কৃতী চপার দিয়ে আঘাত করে তাকে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাওড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি পিন্টু। বেশ কয়েকদিন ধরেই  তাঁকে তপন দত্ত খুন সংক্রান্ত মামলা তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দেওয়া হচ্ছিল বলে অভিযোগ করেছেন তপন দত্তের স্ত্রীর। তার জেরেই এই হামলার ঘটনা বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি। গুরুতর জখম অবস্থায় পিন্টুকে প্রথমে বেলুড় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে হাওড়া জেলা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। ঠিক কী কারণে এই হামলার ঘটনা তা তদন্ত করে দেখছেন গোয়েন্দারা।
 

বালি এলাকায় একের পর এক জলাভূমি ভরাটের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ গড়ে তুলেছিলেন পরিবেশবিদ ও তৃণমূল কংগ্রেস নেতা তপন দত্ত। বিষয়টি তৃণমূল কংগ্রেসের ওপরের স্তরে জানিয়েছিলেন তপনবাবু। পুলিস প্রশাসনেরও দ্বারস্থ হন। তারপরই খুন হতে হয় তপন দত্তকে। দুহাজার এগারোর ছয় মে বালি লেভেল ক্রসিংয়ে দুষ্কৃতীরা গুলি করে হত্যা করে তপন দত্তকে। রাজ্যজুড়ে শোরগোল পড়ে যায়। তদন্ত শুরু করে সিআইডি। সেই ঘটনায় সিআইডি যে চার্জশিট পেশ করে তাতে নাম ছিল মন্ত্রী অরূপ রায়ের। খুনের ঘটনায় অভিযুক্তদের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগের বিষয়টির উল্লেখ ছিল। অস্বস্তিতে পড়ে সরকার। ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরই তড়িঘড়ি সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে মন্ত্রীর জড়িত থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেন সিআইডির সর্ব্বোচ্চ কর্তা। নতুন করে জমা দেওয়া হয় সাপ্লিমেন্টারি চার্জশিট। যাতে বাদ যায় মন্ত্রী অরূপ রায়ের নাম। আর এই ঘটনায় যিনি তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন, সিআইডির সেই সাব ইনেস্পেক্টর সন্দীপ গঙ্গোপাধ্যায় বদলি হন কোচবিহারে। এরপর হামলা হয় তপন দত্তের ভাগ্নের উপর। ফলে আবারও সংবাদ শিরোনামে উঠে এল তপন দত্ত হত্যা মামলা।
 
 





First Published: Friday, November 16, 2012, 16:19


comments powered by Disqus