এক রাতে শহরে একাধিক শ্লীলতাহানি, প্রশ্নে নিরাপত্তা

Last Updated: Monday, February 11, 2013 - 10:57

ফের শ্লীলতাহানি কলকাতায়। একটি নয়। রবিবার সন্ধেয় শহরজুড়ে পরপর শ্লীলতাহানির ঘটনা ঘটে। কালীঘাট, চিত্পুর এবং সিঁথিতে শ্লীলতাহানির শিকার হন তিন জন। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে মোট পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শহরজুড়ে পরপর শ্লীলতাহানির ঘটনায় বড়সর প্রশ্নের মুখে নারী নিরাপত্তা।
দক্ষিণ কলকাতার কালীঘাট রোড। মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি থেকে ঢিল ছোঁড়া দূরত্ব। রবিবার রাত ৮টা নাগাদ সেখানে স্বামীর সঙ্গে দাঁড়িয়েছিলেন এক তরুণী। সে সময়ই তিনজন যুবক তাঁর শ্লীলতাহানি করে বলে অভিযোগ। প্রতিবাদ করেন স্থানীয় ব্যবসায়ী অমল কুণ্ডু। তাঁকেও মারধর করে ওই তিন যুবক। ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিস।
 
পরের ঘটনাস্থল উত্তর কলকাতার চিত্পুরের গোপাল মুখার্জি রোড। রবিবার সন্ধ্যায় বছর পঁয়ত্রিশের এক মহিলার শ্লীলতাহানি করা হয় বলে অভিযোগ। ঘটনায় মহম্মদ রসিদ ওরফে বীরু নামে এক যুবককে গ্রেফতার করে পুলিস।
 
রবিবার রাতে  একাদশ শ্রেণির এক ছাত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগ ওঠে উত্তর শহরতলির সিঁথির রায়পাড়া রোডে। ঘটনায় সোমনাথ দাস ওরফে রজত নামে এক যুবককে গ্রেফতার করে পুলিস।
 
গত ২৮ জানুয়ারি সন্ধ্যায় শ্যামপুকুরে এক মহিলা সাংবাদিকের শ্লীলতাহানির অভিযোগ ওঠে বিএসএফ জওয়ানের বিরুদ্ধে। গত ৩ ফেব্রুয়ারি জাতীয় গ্রন্থাগারের সামনে কলকাতা পুলিসের প্রাক্তন এক কর্তার মেয়েকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ ওঠে। ওই দিনই গড়ফায় একটি আবাসনের পাশে এক মহিলার শ্লীলতাহানির অভিযোগ ওঠে। রিজেন্ট পার্ক এলাকায় ছাত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগ ওঠে এক অটোচালকের বিরুদ্ধে। গত ৬ ফেব্রুয়ারি কাশীপুর থানা এলাকায় বাসে এক ছাত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগ ওঠে। গত শনিবার বরানগরে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় কিশোরীর দাদাকে গুলি করে দুষ্কৃতীরা। শহরে গত কয়েকদিনে পরের পর শ্লীলতাহানির ঘটনায় প্রশ্নের মুখে নারী নিরাপত্তা।



First Published: Monday, February 11, 2013 - 10:57


comments powered by Disqus