নাট্যকর্মী হেনস্থায় প্রতিবাদ সভায় হস্তক্ষেপ, অভিযোগের তীর শাসক দলের বিরুদ্ধে

শাসকদলের বিরুদ্ধে ফের গণতান্ত্রিক অধিকারে হস্তক্ষেপের অভিযোগ। নাট্যকর্মী বিমল চক্রবর্তীর হেনস্থার ঘটনায় আগামী ১১ই অক্টোবর ডানলপে ইউবি কলোনির মাঠে প্রতিবাদ সভার কর্মসূচি নেন বুদ্ধিজীবীরা।

Updated: Oct 8, 2012, 07:32 PM IST

শাসকদলের বিরুদ্ধে ফের গণতান্ত্রিক অধিকারে হস্তক্ষেপের অভিযোগ। নাট্যকর্মী বিমল চক্রবর্তীর হেনস্থার ঘটনায় আগামী ১১ই অক্টোবর ডানলপে ইউবি কলোনির মাঠে প্রতিবাদ সভার কর্মসূচি নেন বুদ্ধিজীবীরা। কিন্তু ওই দিনেই একই জায়গায় একই সময়ে সভা ডাকল তৃণমূল কংগ্রেস। শাসকদলের এ হেন ভূমিকায় ওই দিন সভা স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বুদ্ধিজীবীরা।

প্রসঙ্গত, মাছবিক্রেতার ওপর তৃণমূল কংগ্রেসের হামলার ঘটনার প্রতিবাদ করায় প্রশাসনিক স্তরে শাস্তিমূলক ব্যবস্থার মুখে পড়তে হয়েছে নাট্যকর্মী বিমল চক্রবর্তী। কর্মসূত্রে বিমলবাবু তথ্য ও সংস্কৃতি দফতরের কর্মী। তাঁকে ডেপুটেশনে পাঠানো হয়েছিল খাদ্য দফতরে। বিমলবাবুর বিষয়টি খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক নিজে জানান মুখ্যমন্ত্রীকে। এরপরই মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে তাঁর সচিবালয় থেকে নির্দেশ যায় তথ্য সংস্কৃতি দফতরের সচিবের কাছে। ওই দফতরের সচিবের নির্দেশে তাঁকে ফের পাঠানো হয় তথ্য ও সংস্কৃতি দফতরে। কিন্তু তাঁকে কম্পালসরি ওয়েটিংয়ে রাখা হয়েছে। নাট্যকর্মীদের অভিযোগ, তৃণমূলের হামলার প্রতিবাদ করায় কর্মক্ষেত্রেও শাস্তির মুখে পড়তে হল বিমলবাবুকে। এই ঘটনার প্রতিবাদে গত শুক্রবার অ্যাকাডেমি অফ ফাইন আর্টসের সামনে সভা করেন বুদ্ধিজীবীরা। একই ঘটনার প্রেক্ষিতে ডানলপে আবার করে প্রতিবাদ সভার সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা। কিন্তু তৃণমূলের সভার জন্য বাধ্য হয়ে সভা বাতিল করেছেন বুদ্ধিজীবীরা।