গোঘাটায় ধর্ষণের শিকার দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী

Last Updated: Friday, June 21, 2013 - 09:48

দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল আরামবাগের গোঘাটে। অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিস।  ধর্ষণে বাধা দেওয়ায় এক মহিলাকে মারধর করে তাঁর যৌনাঙ্গে ভোজালির কোপ মারল পাচারকারীরা। ঘটনাটি  স্বরূপনগরের সীমান্তবর্তী গ্রাম কৈজুড়িতে। এদিকে, চিকিত্‍সকদের চাপে পড়ে শেষে অভিযুক্ত নাবালকের বিরুদ্ধে গাইঘাটা থানায় ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করল নির্যাতিতার পরিবার।  
গোঘাটের বিরামপুর গ্রামে দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল। অভিযোগ, বুধবার খেলার সময় ওই নাবালিকাকে পাশের মাঠে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে শিশির মুদি নামে এক যুবক। স্থানীয় তৃণমূল কর্মীরা প্রথমে বিষয়টি মিটমাট করার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। শেষপর্যন্ত গোঘাট থানায় অভিযোগ দায়ের হলে গ্রেফতার করা হয় শিশির মুদিকে। 
বৃহস্পতিবার স্বরূপনগরের সীমান্তবর্তী গ্রাম কৈজুড়িতে এক মহিলাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে কয়েকজন পাচারকারী। বাধা দেওয়ায় ওই মহিলার যৌনাঙ্গে ভোজালির কোপ মারে পাচারকারীরা। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ওই মহিলা বসিরহাট মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি।
আর জি কর হাসপাতালের চিকিত্‍সকদের চাপে পড়ে অবশেষে গাইঘাটা থানায় ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করল নির্যাতিতার পরিবার। গত আঠেরো তারিখ তাঁতিপাড়ায় বছর পনেরোর নাবালক কিশোর এক নাবালিকাকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ।
গণধর্ষণের এফআইআর নিতে না চাওয়ার অভিযোগ উঠল পাঁশকুড়া থানার বিরুদ্ধে। মেয়ের খোঁজ না পেয়ে প্রতিবেশী তিন যুবকের বিরুদ্ধে অপহরণের অভিযোগ দায়ের করেছিলেন দশম শ্রেণির এক ছাত্রীর বাবা। পরে মেয়ের কাছ থেকে গণধর্ষণের কথা জানতে পেরে পুলিসে অভিযোগ জানাতে যান তিনি। অভিযোগ, পুলিস এফআইআর নিতে চায়নি।  
পুলিসের বিরুদ্ধে ধর্ষণের এফআইআর না নিতে চাওয়ার অভিযোগ উঠেছে মালদার হবিবপুরেও। বৃহস্পতিবার সকালে আম কুডোতে যায় দুই ছাত্রী। অভিযোগ, সেই সময় তাদের ওপর চড়াও হয় স্থানীয় যুবক সুশান্ত মণ্ডল। এক ছাত্রী পালিয়ে গেলেও পঞ্চম শ্রেণির আরেক ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে ওই যুবক। পরে সংবাদমাধ্যমের চাপে অভিযোগ নেয় হবিবপুর থানা।
অন্যদিকে, তাঁদের মেয়েকে ধর্ষণ করে খুন করা হয়েছে। বর্ধমানের মেমারির যুবক অভিজিত্ প্রামানিকের বিরুদ্ধে এমনই অভিযোগ এনেছেন এক দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রীর বাবা-মা। তাঁদের অভিযোগ, নদিয়ার মায়াপুরের একটি হোটেলে অভিজিত্ তাঁদের মেয়েকে ধর্ষণ করে। কৃষ্ণনগর সদর হাসপাতালের চিকি্তসকদের দাবি, মৃত অবস্থাতেই মেয়েটিকে হাসপাতালে আনা হয়েছিল। ওই যুবকের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করেন মৃত ছাত্রীর বাবা-মা। এরপরই অভিজিত্‍ প্রামাণিককে গ্রেফতার করে পুলিস। প্রমাণ লোপাটের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয় মায়াপুরের ওই হোটেলটির মালিক এবং এক কর্মচারীকেও।
 
 



First Published: Friday, June 21, 2013 - 09:48


comments powered by Disqus