সমর সম্ভারে গুরুতর ঘাটতি, উদ্বেগ জানাল সংসদীয় কমিটি

Last Updated: Monday, April 30, 2012 - 21:04

সমরাস্ত্র ও অন্যান্য প্রতিরক্ষা সরঞ্জামের ক্ষেত্রে বড়সড় ঘাটতি রয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনীর। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখে এই অভিযোগ জানিয়েছিলেন সেনাপ্রধান জেনারেল ভি কে সিং। এবার সংসদীয় স্ট্যান্ডিং কমিটির রিপোর্টে প্রমাণিত হল এই অভিযোগ। দেখা যাচ্ছে, সাঁজোয়া হেলিকপ্টার থেকে গোলাবারুদ, অ্যান্টি এয়ারক্র্যাফট গান থেকে অত্যাধুনিক নাইট ভিশন-প্রায় সব ক্ষেত্রেই সরঞ্জামের অভাবে ভুগছে সেনাবাহিনী। আমেরিকা, ব্রিটেন, চিন তো দূরের কথা, প্রতিবেশী পাকিস্তানের থেকেও সামরিক সরঞ্জামের নিরিখে অনেক ক্ষেত্রে পিছিয়ে রয়েছে ভারত। সমর সম্ভারের বড়সড় ঘাটতি রয়েছে বিমানবাহিনীতেও।
কংগ্রেস সাংসদ সতপাল মহারাজের নেতৃত্বাধীন প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত স্ট্যান্ডিং কমিটির রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, ভারতীয় ফৌজের আকাশ-শাখা `আর্মি অ্যাভিয়েশন কোর`-এ সেনা হেলিকপ্টারের সংখ্যাও কম। প্রয়োজনের তুলনায় প্রায় ১৮টি চিতা হেলিকপ্টার কম রয়েছে সেনার হাতে। মূলত সিয়াচেন ও চিন সীমান্তে সেনাদের যাতায়াতের কাজে ব্যবহৃত হয় এই হেলিকপ্টার। `ধ্রুব`র মতো হাল্কা কপ্টারের ক্ষেত্রে ঘাটতির সংখ্যা ৭৬।
আকাশ প্রতিরক্ষার দায়িত্বে থাকা `কোর অফ আর্মি এয়ার ডিফেন্স`-এর হাতে উপযুক্ত বিমান বিধ্বংসী কামানের অভাব রয়েছে। টান রয়েছে, ট্যাঙ্কবাহিনীর অস্ত্র ও গোলাবারুদের মজুতেও। বায়ুসেনার যেখানে যুদ্ধবিমানের ৪২টি স্কোয়াড্রন থাকার কথা সেখানে ৩৪টি স্কোয়াড্রন রয়েছে। এরপর তা আরও কমে ৩১টি স্কোয়াড্রন হওয়ার কথা।
শুধু তাই নয়, স্ট্যান্ডিং কমিটির রিপোর্ট বলছে বায়ুসেনা যে সব বিমান ব্যবহার করে তার বেশিরভাগই মান্ধাতার আমলের। গত শতকে কেনা সুখোই-৩০-এর পর নতুন কোনও ফাইটার জেট পায়নি বায়ুসেনা। আশির দশকে বোফর্সের পর নতুন কামানও আর আনা হয়নি আর্টিলারি কোর-এ। ঘাটতি রয়েছে গোলাবারুদেও। সংসদীয় কমিটি এই রিপোর্ট দিয়ে সরকারকে অবিলম্বে ঘাটতি মেটানোর পরামর্শ দিয়েছে। সেই সঙ্গে এতদিন কেন এই ঘাটতি মেটানোর চেষ্টা হয়নি, তা নিয়েও প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের সমালোচনা রয়েছে রিপোর্টে।



First Published: Monday, April 30, 2012 - 21:09


comments powered by Disqus