আরএসএস প্রধানের পর অসীমানন্দের বোমার নিশানায় এবার নরেন্দ্র মোদী, জানালেন দাঙ্গায় প্রভাব খাটাতে তাঁর পাশেই ছিলেন নমো

শুধু আরএসএসের বর্তমান প্রধানই নয়। অসীমানন্দের বোমায় নাম জড়াল লোকসভা ভোটে বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদীরও। দ্য ক্যারাভান পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে অসীমানন্দের দাবি, দাঙ্গায় প্রভাব খাটানোর দায়ে তাঁর ওপর আডবাণী বা কেশুভাই প্যাটেল রুষ্ট হলেও সব সময়ই সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন মোদী।ধর্মান্তকরণ বাড়ছিল। তাই গুজরাটের ডাঙের জঙ্গলে ঘাঁটি গাড়েন স্বামী অসীমানন্দ।

Updated: Feb 6, 2014, 08:02 PM IST

শুধু আরএসএসের বর্তমান প্রধানই নয়। অসীমানন্দের বোমায় নাম জড়াল লোকসভা ভোটে বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদীরও। দ্য ক্যারাভান পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে অসীমানন্দের দাবি, দাঙ্গায় প্রভাব খাটানোর দায়ে তাঁর ওপর আডবাণী বা কেশুভাই প্যাটেল রুষ্ট হলেও সব সময়ই সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন মোদী।ধর্মান্তকরণ বাড়ছিল। তাই গুজরাটের ডাঙের জঙ্গলে ঘাঁটি গাড়েন স্বামী অসীমানন্দ।

উনিশশো আটানব্বইয়ে দেখা গেল তাঁর প্রথম খেল। ডাঙে খ্রীস্টান-দাঙ্গা। ছুটে গেলেন সোনিয়া গান্ধী। আর প্রচারের আলোয় চলে এলেন কিছুদিন আগেই আরএসএসের পুরস্কার পাওয়া অসীমানন্দ। কিন্তু ওই ঘটনা নিয়ে হইচই হতেই কড়া মনোভাব নিতে বাধ্য হন তত্কালীন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লালকৃষ্ণ আডবাণী। তাঁর নির্দেশে গুজরাটের তত্কালীন মুখ্যমন্ত্রী কেশুভাই প্যাটেল অসীমানন্দের বেশ কয়েকজন সঙ্গীসাথীকে গ্রেফতার করেন। সেই সময় অসমীনন্দ পাশে পেলেন নরেন্দ্র মোদীকে। অসীমানন্দ সাক্ষাত্কারে বলেছেন,

"মোদী আমাকে বলেন-- আমি জানি কেশুভাই আপনার সঙ্গে কী করেছেন। তবে স্বামীজি আপনি যা করছেন, তার তুলনা হয় না। আপনিই আসল কাজটা করছেন। ঠিক হয়েছে, পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী আমিই। আমি মুখ্যমন্ত্রী হলে আমি আপনার কাজটা করব। নিশ্চিন্ত থাকুন।`

২০০১ অক্টোবরে মোদী মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর দুহাজার দুয়ের ফেব্রুয়ারিতে গুজরাত দাঙ্গা। ডাঙে ভারটা ছিল অসীমানন্দের হাতে। সাক্ষাত্কারে অসীমানন্দ বলেছেন, এলাকা থেকে মুসলমানদের তাড়ানোর ভারটাও ছিল আমার হাতেই।

সাক্ষাত্কার থেকে জানা যায়, দাঙ্গার পরেই ডাঙে অসীমানন্দের প্রভাব বাড়াতে সেখানে যান স্বয়ং নরেন্দ্র মোদী। অসীমানন্দ শবরী ধাম তৈরির উদ্যোগ নেন। তার টাকা তুলতে আয়োজন করেন আট দিনের রামকথা অনুষ্ঠানের। ভোটপ্রচারে ব্যস্ত মোদী সময় বের করে চলে যান সেই অনুষ্ঠানের উদ্বোধনে।

দ্য ক্যারাভ্যান ম্যাগাজিনের দাবি, অসীমানন্দের মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া নিতে তাঁরা নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পারেননি।