মোদীতে এক পা এগিয়ে দু পা পিছনে হাঁটল বিজেপি

Last Updated: Thursday, June 6, 2013 - 20:06

লোকসভা ভোটে বিজেপির প্রচার কমিটির প্রধান হতে পারেন নরেন্দ্র মোদী। গোয়ায় দলের জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠকেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে, মোদীকে এখনই প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসাবে তুলে ধরতে চাইছে না বিজেপি। গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে দলীয় কোন্দল আর জোট রাজনীতির বাধ্যবাধকতা। এই দুয়ের জেরে এনডিএ-র প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থীর নাম ঠিক করতে ধীরে চলো নীতি নিয়েই এগোতে চাইছে বিজেপি। 
রাজনাথ সিং দলীয় সভাপতির দায়িত্ব নেওয়ার পর আগামী শনি ও রবিবার গোয়ায় প্রথম বৈঠকে বসছে বিজেপির জাতীয় কর্মসমিতি। তার আগে, শুক্রবার দলের জাতীয় পরিষদের বৈঠক ডাকা হয়েছে। 
 
লোকসভা নির্বাচনের আগে সম্ভবত এটিই দলের জাতীয় কর্মসমিতির শেষ বৈঠক। বৈঠকে, ২০১৪ রণকৌশল ঠিক করার পাশাপাশি ছয় রাজ্যে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন নিয়েও কথা হবে। তবে, গুরুত্বপূর্ণ এই বৈঠকের আগে নরেন্দ্র মোদীকে কেন্দ্র করে দলের শীর্ষনেতাদের মত বিরোধে চরম অস্বস্তিতে বিজেপি। মোদীর পাশে রাজনাথ সিং থাকলেও তাঁকে প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দেখতে চান না লালকৃষ্ণ আডবাণী, সুষমা স্বরাজরা।
সম্প্রতি, শিবরাজ সিং চৌহানের সঙ্গে তুলনা করে আডবাণী ঘুরিয়ে মোদীকে খাটো করায় শুরু হয়েছে নতুন বিতর্ক। এই পরিস্থিতিতে, জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠকের আগে দলীয় কোন্দল আড়াল করতে মরিয়া বিজেপি।    
 
লোকসভা ভোটের আগে নরেন্দ্র মোদীকে প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসাবে ঘোষণা করতে চান বিজেপি নেতাদের একাংশ। তবে, শরিকি চাপ বারবার তাঁদের ইচ্ছাপূরণে বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। এই অবস্থায় জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠকে এখনই প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসাবে মোদীর নাম না ঘোষণা হওয়ার সম্ভাবনাই প্রবল। বৃহস্পতিবার, বিজেপি নেতা মুখতার আব্বাস নকভি জানান, লোকসভা নির্বাচনে প্রচারে রামমন্দির ইস্যুকে গুরুত্ব দিচ্ছেন না তাঁরা। জোট রাজনীতির পক্ষেও সওয়াল করেন তিনি। উপনির্বাচনে জেডিইউয়ের হারকে এনডিএর পরাজয় বলেও দলের তরফে মন্তব্য করা হয়েছে। 
 
সম্প্রতি, বিজেপি সংসদীয় বোর্ডের সদস্য হয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। গুজরাতে উপ-নির্বাচনে কংগ্রেসের কাছ থেকে দুটি লোকসভা ও চারটি বিধানসভা আসন ছিনিয়ে নেওয়ার পর তাঁর আরেক দফা রাজনৈতিক উত্থানের সম্ভাবনা জোরালো হয়েছে। শেষ পর্যন্ত, প্রধানমন্ত্রী হিসাবে তাঁর নাম ঘোষণা করা না হলেও গোয়া থেকে গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রীকে খালি হাতে ফিরতে হবে না বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।



First Published: Thursday, June 6, 2013 - 20:06


comments powered by Disqus