ব্রহ্মপুত্র বাঁধ নিয়ে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মনমোহন, জিংপিন

ডারবানে ব্রিকস শীর্ষ সম্মেলনের ফাঁকে চিনের নতুন প্রেসিডেন্ট শি জিংপিনের সঙ্গে বৈঠক করলেন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। জিনপিং প্রেসিডেন্টের কার্যভার গ্রহণ করার পর মনমোহন সিংয়ের সঙ্গে এটিই ছিল তাঁর প্রথম সাক্ষাত্‍। বৈঠক ফলপ্রসূ হয়েছে বলে জানিয়েছে বিদেশমন্ত্রক। মনমোহন-জিনপিং দুই নেতাই দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নয়নের ওপর জোর দিয়েছেন বলে জানানো হয়েছে। সীমান্ত সমস্যা, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের মতো নানা বিষয়ে কথা হলেও পঁচিশ মিনিটের বৈঠকে গুরুত্ব পেয়েছে ব্রহ্মপুত্র।

Updated: Mar 28, 2013, 05:02 PM IST

ডারবানে ব্রিকস শীর্ষ সম্মেলনের ফাঁকে চিনের নতুন প্রেসিডেন্ট শি জিংপিনের সঙ্গে বৈঠক করলেন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। জিনপিং প্রেসিডেন্টের কার্যভার গ্রহণ করার পর মনমোহন সিংয়ের সঙ্গে এটিই ছিল তাঁর প্রথম সাক্ষাত্‍। বৈঠক ফলপ্রসূ হয়েছে বলে জানিয়েছে বিদেশমন্ত্রক। মনমোহন-জিনপিং দুই নেতাই দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নয়নের ওপর জোর দিয়েছেন বলে জানানো হয়েছে। সীমান্ত সমস্যা, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের মতো নানা বিষয়ে কথা হলেও পঁচিশ মিনিটের বৈঠকে গুরুত্ব পেয়েছে ব্রহ্মপুত্র।
ব্রহ্মপুত্রের ওপর তিনটি বাঁধ নির্মাণের পরিকল্পনা করেছে চিন। ভারতের উদ্বেগ, বাঁধ নির্মিত হলে ভারতের এলাকায় ব্রহ্মপুত্রে জলের পরিমাণ কমে যাবে।  চিনের তরফে দাবি করা হয়েছে, তাদের পরিকল্পনা খুবই সাধারণ। ভারত মোটেই জলের সমস্যায় পড়বে না।
ব্রহ্মপুত্রের জল নিয়ে তথ্য বিনিময়ের জন্য ভারত ও চিনের মধ্যে চুক্তি থাকলেও নদীর জল বণ্টন নিয়ে দুদেশের মধ্যে কোনও চুক্তি নেই। চিনের সরকারি সংবাদমাধ্যম জিনহুয়া জানিয়েছে, মনমোহন সিংয়ের সঙ্গে বৈঠকে দুদেশের সামরিক আদান-প্রদান আরও বাড়ানোয় জোর দিয়েছেন শি জিনপিং। সীমান্ত সমস্যা মেটাতে জোর দিয়েছেন  আলোচনায়।
রাষ্ট্রসঙ্ঘ, জি-টুয়েন্টির মতো প্রতিষ্ঠানে ভারত-চিন সমঝোতা আরও বাড়ানোর কথা বলেছেন জিনপিং। তাঁকে ভারতে আসার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন মনমোহন সিং। চিনের প্রেসিডেন্ট সেই আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন। সূত্রের খবর, চলতি বছরেই চিনে যেতে পারেন প্রধানমন্ত্রী।