প্রতিবাদে আজও জ্বলছে মোমের আলো

প্রতিবাদে আজও জ্বলছে মোমের আলো

প্রতিবাদে আজও জ্বলছে মোমের আলো এখনও থামেনি প্রতিবাদ। দিল্লির এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না হয়, সে জন্য এখন সময় আরেক নতুন লড়াইয়ের প্রস্তুতি। গণধর্ষণে দোষীদের মৃত্যুদণ্ডের দাবিতে আজও বিক্ষোবমুখর গোটা দেশ। সকাল থেকে দিল্লির যন্তরমন্তরে বিক্ষোভে সামিল হয়েছেন বহু মানুষ। সমাজকে নারীর বাসযোগ্য করার দাবিতে যন্তরমন্তরে একদিনের প্রতীকী অনশনে বসেছেন বিক্ষোভকারীদের একাংশ। দেশের অন্যান্য অংশ থেকেও আসছে বিক্ষোভের খবর। গণধর্ষণকাণ্ডের প্রতিবাদে পুরীর সমুদ্র পাড়ে বালির মূর্তি তৈরি করেছেন শিল্পী। চেন্নাই, কলকাতাতেও দিল্লির ঘটনায় দোষীদের শাস্তির দাবিতে মিছিলে সামিল হয়েছেন সাধারণ মানুষ।

দিনভর কড়াকড়ির পর বিকেলের দিকে একটু শিথিল করা হল দিল্লির নিরাপত্তা বাঁধন। বিকেলের দিকে বন্ধ দশটি মেট্রোস্টেশনের পাঁচটিতে ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। প্রগতি ময়দান, মাণ্ডি হাউস, বারাখাম্বা রোড, রাজীব চক ও প্যাটেল চক মেট্রোস্টেশন খোলার অনুমতি দিয়েছে পুলিস। তবে দিল্লির অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলিতে এখনও নিরাপত্তার কড়াকড়ি অপরিবর্তিত। রাজপথ, বিজয়চক এবং ইন্ডিয়া গেট সংযোগকারী সড়কগুলিতে যান চলাচল নিষিদ্ধ। বন্ধ কামাল আতাতুর্ক মার্গ। প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন, রাষ্ট্রপতি ভবন ও দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিতের বাড়ির সামনে বাড়তি নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন রাখা হয়েছে। রাজ্যনৈতিক নেতাদের বাসভবন ও দিল্লির অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলিও কড়া নিরাপত্তার চাদরে। সাধারণ মানুষের বিক্ষোভ প্রদর্শনের কেবল খোলা রয়েছে যন্তরমন্তরের দরজা।   

গণধর্ষণে দোষীদের শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ দেখানোকে কেন্দ্র করে পুলিসের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ালেন বিজেপির ছাত্র সংগঠন এবিভিপির সদস্যরা। দুপুর একটা নাগাদ, এবিভিপির একটি বিক্ষোভ মিছিল যন্তরমন্তরে পৌঁছয়। মিছিলটি যন্তরমন্তর থেকে কনট প্লেসের দিকে এগোনোর চেষ্টা করলে বাধা দেয় পুলিস। পুলিসের সঙ্গে প্রথমে ধস্তাধস্তি ও পরে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন বিক্ষোভকারীরা। সঙ্গে সঙ্গেই অতিরিক্ত পুলিস ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বিক্ষোভকারীদের কয়েকজনকে চিহ্নিত করে ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে নিয়ে যায় পুলিস।

First Published: Sunday, December 30, 2012, 18:59


comments powered by Disqus