খুন বা গণধর্ষণের মত অপরাধে জড়িত নাবালকদের প্রাপ্তবয়স্কদের মত শাস্তি প্রদানে এগোল দেশ

Last Updated: Saturday, September 21, 2013 - 15:28

দিল্লি গণধর্ষণে এক নাবালকের ভূমিকা এবং নৃশংসতা প্রকাশ্যে আসার পর সাবালকত্বের বয়সসীমা নিয়ে তীব্র বিতর্ক তৈরি হয়েছিল দেশ জুড়ে। তারপরে মুম্বই থেকে গুয়াহাটি, একেরপর এক গণধর্ষণ, খুনে নাবালকদের ক্রমবর্ধমান যুক্ত থাকার ঘটনা সে বিতর্ককে বারবার উস্কে দিয়েছে। প্রাথমিক ভাবে সংসদে বাতিল হয়ে যায় সাবালকত্বের বয়স ১৮ থেকে কমিয়ে ১৬ করে দেওয়ার দাবি। কিন্তু বর্তমান সমাজে নাবালকত্বের নৃশংস অপরাধে জড়িত থাকার ঘটনার পরে কেন্দ্রীয় সরকার নতুনভাবে এই বিষয় নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার দিকে এক কদম এগোল। ১৬ থেকে ১৮ বছরের মধ্যে থাকা কোনও নাবালক যদি খুন বা গণধর্ষণের মত নৃশংস ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকে ভারতীয় পিনালকোডে সম্ভবত এ বার থেকে তার অপরাধ প্রাপ্তবয়স্কদের সমান অপরাধ হিসাবেই গণ্য হবে।
কেন্দ্রীয় শিশু ও নারী কল্যাণ দফতর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ১৮ বছরের কমবয়সী যারা ভয়াবহ অপরাধের সঙ্গে জড়িত তাঁদের আর জুভেলাইন জাস্টিস আইনের আওতায় সুরক্ষা দেওয়া হবে না।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, গ্রেটব্রিটেন, ফ্রান্সের মত দেশে এই ধরণের আইন বহুদিন ধরেই প্রচলিত। গ্রেট ব্রিটেনে ১৭-এর কম বয়সী কেউ যদি যৌন অত্যাচার, শিশুদের উপর যৌন নির্যাতন, কোনও শিশু বা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করে তাহলে তাকে প্রাপ্তবয়স্কদের সমান শাস্তি ভোগ করতে হয়। ১৬ থেকে ১৮ বছর বয়সী অপরাধীদের (অপরাধের তীব্রতার উপর ভিত্তি করে) জন্য ফ্রান্সে পৃথক জুভেনাইল আদালত আছে। যেখানে দোষ প্রমাণিত হলে অপরাধীদের কড়া শাস্তি ভোগ করতে হয়। ২০১২ তে ফ্লোরিডায় এক ১৩ বছরের কিশোরকে পাঁচ বছরের এক শিশুর উপর যৌন অত্যাচার করার সময় দেখে ফেলেছিল তারই সৎ ভাই। ভাইকে ওই কিশোর পিটিয়ে মেরে ফেলে। প্রাপ্তবয়স্ক অপরাধ হিসাবেই তার অপরাধকে গণ্য করা হয় এবং শাস্তিও ভোগ করে সে।
অপরাধ যাই হোক না কেন ভারতে ১৮ বছরের কম বয়সীরা জুভেনাইল জাস্টিস আইনে সর্বপেক্ষা ৩বছর সংশোধনাগারে থাকে।
চলতি বছরের জুলাইয়ে সুপ্রিমকোর্টে সাবালকত্বের বয়সসীমা ১৮ থেকে কমিয়ে ১৬ করার দাবি খারিজ করে দেওয়া হয়। তবে বর্তমানে শীর্ষ আদালত জানিয়েছে ঘৃণ্য অপরাধের সঙ্গে জড়িত নাবালকদের প্রাপ্তমনস্কতার প্রতিটি মামলা পৃথকভাবে বিচার করার কথা ভাবা হচ্ছে।



First Published: Saturday, September 21, 2013 - 15:28


comments powered by Disqus