`দিশাহীন` কেজরিওয়ালকে আটক করল পুলিস

দিল্লি পুলিসের হাতে আটক হলেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে অভিযান করার সময় কেজরিওয়াল ও তাঁর সঙ্গীদের আটক করা হয়। একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থায় অনিয়মের জেরে অভিযুক্ত কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী সলমন খুরশিদের পদত্যাদের দাবিতে সরব হয়েছেন কেজরিওয়ালরা।

Updated: Oct 12, 2012, 09:24 PM IST

দিল্লি পুলিসের হাতে আটক হলেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে অভিযান করার সময় কেজরিওয়াল ও তাঁর সঙ্গীদের আটক করা হয়। একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থায় অনিয়মের জেরে অভিযুক্ত কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী সলমন খুরশিদের পদত্যাদের দাবিতে সরব হয়েছেন কেজরিওয়ালরা।
এদিন সকালে সদ্য রাজনীতিতে পা রাখা কেজরিওয়াল ও রাষ্ট্রীয় বিকলাঙ্গ পার্টির প্রায় সত্তর জন সমর্থক ৭ রেসকোর্স রোডের দিকে এগোলে, রাজপথের কাছে তাঁদের আটকে দেয় পুলিস। সেখানেই অবস্থানে বসার চেষ্টা করায় তাঁদের আটক করে দিল্লি প্রশাসন। অবস্থানকারীরা দীর্ঘক্ষণ বিক্ষোভ চালিয়ে যায়। শুক্রবার দিনভর প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ ও খুরশিদের পদত্যাগের দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন কেজরিওয়ালপন্থিরা।
মূলত দুটি দাবি থেকে সরে আসতে কার্যত নারাজ কেজরিওয়াল এদিন বলেন, "এখানেই আর একটি তাহরির স্কোয়ার করতে হবে।" যদিও কেজরিওয়াল নেতৃত্বাধীন আইএসি-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে শুক্রবারের প্রতিবাদ কর্মসূচীটি আরভিপি পার্টির তরফেই আয়োজিত হয়েছিল এবং তাঁরা সেখানে শুধুমাত্র অতিথি হিসাবে যোগ দেন। আইএসি এই দাবি করলেও এদিনের কর্মসূচীতে যোগ দেওয়ার জন্য তাঁদের তরফে বহু মানুষের কাছে এসএমএস পাঠানো হয়। ইন্ডিয়া এগেনস্ট করাপশনের এক সমর্থকের কথায়, "আইএসি সমর্থিত প্রতিবন্ধীরা আজ জনপথে বিক্ষোভে বসেন।" প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাত না পাওয়া পর্যন্ত তাঁরা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলে জানান ওই ব্যক্তি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের আবেদন করায় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে তাঁদের কোনও অনুমোদন দেওয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন কেজরিওয়াল।
অন্যদিকে, ভারতীয় জনতা পার্টির তরফে এদিন অভিযোগ করা হয়েছে, `দিশাহীন মিসাইল` কেজরিওয়ালের আন্দোলন বস্তুত মদত যোগাচ্ছে কংগ্রেসকেই। এদিন বিজেপি মুখপাত্র মুক্তার আব্বাস নখবি বলেন, "অরবিন্দ কেজরিওয়ালরা দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলন চালালে আমাদের কোনও অসুবিধা নেই।" কিন্তু এই সরকার বিরোধী আন্দোলন আখের কেন্দ্র সরকারের সমর্থনে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। নখবি আরও বলেন, "আন্না হাজেরের নেতৃত্বে দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলন সুপরিচালিত হলেও, এখন তা `দিশাহীন মিসাইলে` পরিণত হয়েছে।"