মমতা-করুণানিধির অনুপস্থিতিতেই 'সাফল্যের খতিয়ান' পেশ প্রধানমন্ত্রীর

তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং ডিএমকে কুলপতি করুণানিধি গরহাজিরার কথা জানিয়েছিলেন আগেই। রাজনৈতিক মহলে নতুন জল্পনা উস্‌কে দিয়ে ইউপিএ ২ সরকারের তৃতীয় বর্ষপূর্তিতে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে নৈশভোজের আসরে অনুপস্থিত রইলেন, সমর্থক দল বহুজন সমাজ পার্টির নেত্রী মায়াবতীও।

Updated: May 22, 2012, 05:48 PM IST

তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং ডিএমকে কুলপতি করুণানিধি গরহাজিরার কথা জানিয়েছিলেন আগেই। রাজনৈতিক মহলে নতুন জল্পনা উস্‌কে দিয়ে ইউপিএ ২ সরকারের তৃতীয় বর্ষপূর্তিতে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে নৈশভোজের আসরে অনুপস্থিত রইলেন, সমর্থক দল বহুজন সমাজ পার্টির নেত্রী মায়াবতীও। অন্যদিকে এদিন দ্বিতীয় ইউপিএ সরকারের তৃতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষ্যে কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির বিশেষ বৈঠক হয়। বৈঠকের পর জারি করা এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থাগ্রহণের উপর জোর দেন ইউপিএ চেয়ারপার্সন সোনিয়া গান্ধী।
রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রাক্কালে তৃতীয় বর্ষপূর্তির নৈশভোজ ঘিরে ইউপিএ`র অভ্যন্তরীণ টানাপোড়েন নিয়ে সঙ্গত কারণেই প্রবল জল্পনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। সোমবার রাতেই ডিএমকে`র তরফে জানান হয়, স্বাস্থ্যের কারণে অনুপস্থিত থাকবেন করুণানিধি। মঙ্গলবার সকালে তাঁর ছেলে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী আলাগিরিও `ডায়েটিং`-এর অজুহাতে প্রধানমন্ত্রীর ডিনার পার্টি`তে অংশ না নেওয়ার কথা জানান। গত বছরের মতো এবারও ডিএমকে`র হয়ে অনুষ্ঠানে ছিলেন দলের সংসদীয় নেতা টি আর বালু। অন্যদিকে তৃণমূল নেত্রীর অনুপস্থিতির কারণ এখনও জানা যায়নি। রাজ্যের সুদ মকুব এবং আর্থিক প্যাকেজ নিয়ে এই দুই শরিকের ব্যবধান বৃদ্ধিকেই তাঁর অনুপস্থিতির কারণ হিসেবে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।
প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে প্রথম ইউপিএ সরকারের পথ মোটের উপর মসৃণ থাকলেও লোকপাল বিল থেকে খুচরো ব্যবসায় বিদেশি বিনিয়োগের মতো বিভিন্ন ইস্যুতে শরিকি চাপে যথেষ্ট টলোমলো সরকারের সেকেন্ড ইনিংস। এছাড়াও দুর্নীতি, মূল্যবৃদ্ধির মতো ইস্যুগুলিতেও এই সরকার সাধারণ মানুষের কাছেও জনপ্রিয়তা হারিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। সম্প্রতি এক জনমত সমীক্ষায় শহরাঞ্চলের ৬৬ শতাংশ মানুষ এই সরকার পরিবর্তনের পক্ষে মত দিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানেই প্রধান দুই শরিক দলের শীর্ষ নেতৃত্বের অনুপস্থিতি জোট সরকারের ঐক্য নিয়ে প্রশ্ন তুলবে বলেই মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল।

বস্তুত, এদিনও মনমোহন জমানার কয়লা কেলেঙ্কারি নিয়ে প্রবল উত্তেজনা তৈরি হয় রাজ্যসভায়। সিএজি রিপোর্ট পেশে সরকার দেরি করছে, এই অভিযোগে বিরোধীরা প্রবল শোরগোল বাধানোয় দু'বার সভার কাজ মুলতুবি করে দিতে হয়। অন্যদিকে লোকসভায় অন্ধ্রপ্রদেশে ট্রেন দুর্ঘটনা নিয়ে লোকসভায় বিরোধীরা রেলমন্ত্রীর বিবৃতি দাবি করে ঘনঘন স্লোগান তোলায় সভার কাজ মুলতুবি করে দিতে হয়। এই প্রবল অস্বস্তিকর পরিস্থিতির মধ্যেই এদিন নৈশভোজ অনুষ্ঠানের আগে ইউপিএ সরকারের কাজের খতিয়ান- 'রিপোর্ট টু পিপ্‌ল' পেশ করে ঢালাও সাফল্যের দাবি করেন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। খাদ্যশস্য উত্‍পাদন থেকে শুরু করে অগ্নি-৫-এর উত্‍ক্ষেপণ-সব ক্ষেত্রেই দ্বিতীয় ইউপিএ সরকারের আমলে ভাল কাজ হয়েছে বলে দাবি করেন, ৭ রেসকোর্স রোডের বাসিন্দা।