`বাল্য-বিবাহই ধর্ষণের সমাধান`, খাপের পাশে চৌতালাও

ধর্ষণের অভিযাগে জেরবার হরিয়ানা। বিতর্কের সুনামি তুলে, রাজ্যের খাপ পঞ্চায়েতের সরল `সমাধান সূত্র`, বাল্য বিবাহেই ধর্ষণের প্রতিকার সম্ভব। আশ্চর্যজনক ভাবে দল নির্বিশেষে রাজ্যের প্রথম সারির নেতারা হয় বিষয়টি নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছিলেন, অথবা প্রকারান্তরে মৌন সমর্থন জানিয়ে আসছিলেন। এবার একেবারে প্রকাশ্যেই খাপ-বিধানের পাশে দাঁড়ালেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওম প্রকাশ চৌতালা।

Updated: Oct 10, 2012, 06:20 PM IST

ধর্ষণের অভিযাগে জেরবার হরিয়ানা। বিতর্কের সুনামি তুলে, রাজ্যের খাপ পঞ্চায়েতের সরল `সমাধান সূত্র`, বাল্য বিবাহেই ধর্ষণের প্রতিকার সম্ভব। আশ্চর্যজনক ভাবে দল নির্বিশেষে রাজ্যের প্রথম সারির নেতারা হয় বিষয়টি নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছিলেন, অথবা প্রকারান্তরে মৌন সমর্থন জানিয়ে আসছিলেন। এবার একেবারে প্রকাশ্যেই খাপ-বিধানের পাশে দাঁড়ালেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওম প্রকাশ চৌতালা।
বুধবার এক বেসরকারি টিভি চ্যানেলকে চৌতালা বলেন, "ইতিহাস থেকে আমাদের শিক্ষা নেওয়া উচিত... বিশেষ করে মুঘল আমল, যখন সম্রাটদের ব্যাভিচার থেকে কন্যা সন্তানদের বাঁচাতে অল্প বয়েসেই বিয়ে দিয়ে দেওয়া হত। আমার ধারণা, সেই কারণেই খাপ এই নিদান দিয়েছে এবং আমি একে (বিধানকে) সমর্থন করি।"
অন্যদিকে, আজই হরিয়ানার কৈথাল জেলার কলায়েতে আরেকটি দলিত কিশোরীর ধর্ষণের খবর পাওয়া গিয়েছে। গতকালই হরিয়ানার জিন্দে গণধর্ষণের অপমানে আত্মঘাতী এক দলিত কিশোরীর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে সোনিয়া গান্ধীও কার্যত স্বীকার করে নেন রাজ্যে ধর্ষণের ঘটনা বাড়ছে। সেই সঙ্গে তিনি এও বলেন, আইন আরোপের দায়িত্ব খাপের উপর বর্তায় না। তাঁর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ভূপিন্দর সিং হুডাও।