মমতার ফেডেরাল ফ্রন্টের ডাকে সাড়া নবীনের, কাল্পনিক আখ্যা বামেরা

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ফেডেরাল ফ্রন্ট গঠনের দাবি আদৌ সম্ভব কি না তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে রাজনৈতিক মহলে। তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রীর এই ঘোষণার বাস্তবায়ন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু। তাঁর মতে বিষয়টি অবাস্তব। অন্যদিকে মুখ্যমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত সময়োচিত বলে দাবি করেছেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ফেডেরাল ফ্রন্টের ডাকে ইতিমধ্যে সাড়া দিয়েছেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েক।

Updated: Jun 12, 2013, 10:16 AM IST

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ফেডেরাল ফ্রন্ট গঠনের দাবি আদৌ সম্ভব কি না তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে রাজনৈতিক মহলে। তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রীর এই ঘোষণার বাস্তবায়ন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু। তাঁর মতে বিষয়টি অবাস্তব। অন্যদিকে মুখ্যমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত সময়োচিত বলে দাবি করেছেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ফেডেরাল ফ্রন্টের ডাকে ইতিমধ্যে সাড়া দিয়েছেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েক।
ইউপিএ ছেড়ে বেড়িয়ে আসার পরেই দেশের বিভিন্ন আঞ্চলিক দলগুলিকে নিয়ে জোট গড়ার বিষয়ে উত্সাহ দেখিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার বিজেপির টানাপোড়েন খবরের শিরনামে চলে আসার পর ফের সক্রিয় হয়ে ওঠেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
ফেসবুকে এক বার্তায় বাংলার মুখ্যমন্ত্রী জানান,
``সব আঞ্চলিক দলগুলির একত্রিত হওয়ার এবং আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে একটি ফেডেরাল ফ্রন্ট গড়ার সময় এসেছে। অপশাসন এবং জনবিরোধী সিদ্ধান্ত থেকে দেশকে মুক্ত করা এবং আরও উন্নত, আরও সমৃদ্ধ ভারত গড়ার জন্য, আমি সব অকংগ্রেস এবং অবিজেপি দলগুলিকে একত্রিত হয়ে লড়াই করার আহ্বান জানাচ্ছি।``
তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যের মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মতে তৃতীয় ফ্রণ্ট গড়তে মুখ্যমন্ত্রীর ডাক সময়োচিত। তৃতীয় ফ্রণ্ট গড়া অসম্ভব নয় তবে কঠিন। এদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের  সমর্থনে সাড়া দিয়েছেন ওড়িশাক মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েক। তাঁর মতে, এই জোট গড়ে তোলা দেশের পক্ষে অত্যন্ত জরুরি।
এই ফ্রন্টে জয়ললিতা মুলায়ম সিং যাদবদের পাশে পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী নবীন।
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ফেডেরাল ফ্রন্ট গঠনের বিষয়টি নেহাতই কাল্পনিক। এমনটা মনে করছে বামেরা।
ফেডারেল ফ্রন্ট গঠন হলেও রাজ্য রাজনীতিতে পরস্পরের প্রতিদন্দ্বী দলগুলিকে একসঙ্গে পাওয়া যাবে কি না তা দিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। সেক্ষেত্রে জোট তৈরি হলেও তা লোকসভার ম্যাজিক ফিগার দুশো বাহাত্তর ছুঁতে আদৌ পারবে কি না তা নিয়েও প্রশ্ন থাকছে।