দারিদ্রসীমা বিতর্কে ইন্ধন জোগাল নমুনা সমীক্ষার তথ্য

Last Updated: Friday, May 4, 2012 - 12:20

গ্রামীণ ভারতের ৬০ শতাংশ মানুষ দৈনিক ৩৫ টাকারও কমে দিন গুজরান করেন। আর শহরাঞ্চলের ৬০ শতাংশ মানুষের দৈনিক ক্রয়ক্ষমতা মাত্র ৬৬ টাকা! দারিদ্রসীমা নিয়ে দেশজোড়া বিতর্কের মধ্যেই জাতীয় নমুনা সমীক্ষার সর্বশেষ রিপোর্টে মিলছে এই তথ্য।
২০০৯-এর জুলাই থেকে ২০১০ সালের জুন পর্যন্ত সময়কালে ন্যাশনাল স্যাম্পেল সার্ভে অগর্নাইজেশন-এর আয়-ব্যয় সংক্রান্ত রিপোর্ট বলছে, গ্রামাঞ্চলে মাথাপিছু মাসিক ক্রয়ক্ষমতার সর্বভারতীয় গড় ১,০৫৪ টাকা। গ্রামের ৬০ শতাংশ মানুষের দৈনিক খরচ করার ক্ষমতা ৩৫ টাকারও কম। শহরাঞ্চলে মাথাপিছু মাসিক ক্রয়ক্ষমতার সর্বভারতীয় গড় ১,৯৮৪ টাকা। শহরের ৬০ শতাংশ মানুষের দৈনিক খরচ করার ক্ষমতা মাত্র ৬৬ টাকা।
এনএসএসও-র তথ্য বলছে, আর্থ-সামাজিকভাবে একেবারে পিছনের সারিতে থাকা ১০ শতাংশ গ্রামের মানুষের ক্রয়ক্ষমতা মাসে ৪৫৩ টাকা  বা দিনে মাত্র ১৫ টাকা। শহরে এই পরিমাণ মাসিক ৫৯৯ টাকা বা দৈনিক ২০ টাকা। জাতীয় নমুনা সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, গ্রামে ক্রয়ক্ষমতা সবচেয়ে কম বিহার ও ছত্তিশগড়ে। এরপরই রয়েছে ওড়িশা ও ঝাড়খণ্ড। গ্রামে ক্রয়ক্ষমতা সবচেয়ে বেশি কেরালায়। এরপরই রয়েছে পঞ্জাব ও হরিয়ানা। শহরের ক্ষেত্রেও ক্রয়ক্ষমতা সবচেয়ে কম বিহারে। ক্রয়ক্ষমতা সবচেয়ে বেশি মহারাষ্ট্রে। এরপরই রয়েছে কেরালা ও হরিয়ানা।

জাতীয় নমুনা সমীক্ষার ভিত্তিতেই দারিদ্রসীমার নতুন মাপকাঠি নির্ধারণ করে যোজনা কমিশন। কমিশনের নতুন মানদণ্ড বলা হয়, ২০০৯-১০ আর্থিক বছরের ভিত্তিতে শহরে কেউ দৈনিক ২৮ টাকা ৬৫ পয়সা ও গ্রামে  দৈনিক ২২ টাকা ৪২ পয়সা খরচ করতে পারলেই তাঁকে আর গরিব বলা যাবে না। যোজনা কমিশনের নতুন মাপকাঠিতে দেশে গরিব মানুষের সংখ্যা এক ধাক্কায় ৭ শতাংশ কমে যায়। এরপরই দেশজুড়ে শুরু হয় সমালোচনা। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের অভিযোগ, গরিব মানুষের সংখ্যা কমিয়ে দেখাতে দারিদ্রসীমা নির্ধারণের মাপকাঠিকেই নামিয়ে এনেছে যোজনা কমিশন।



First Published: Friday, May 4, 2012 - 21:46


comments powered by Disqus