সতেরো বছরের সম্পর্কে পূর্ণচ্ছেদ

বিজেপির সঙ্গ ছাড়ল জেডিইউ। ভেঙে গেল সতেরো বছরের পুরনো জোট। বিকেল তিনটেয় সাংবাদিক বৈঠক করে সম্পর্ক ত্যাগের কথা জানিয়ে দিল দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। জেডিইউ সভাপতি শরদ যাদব জানিয়েছেন সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে জোট চালিয়ে যাওয়া, বিজেপি বা জেডিইউ কারোর পক্ষেই লাভজনক হত না।

Updated: Jun 16, 2013, 01:12 PM IST

বিজেপির সঙ্গ ছাড়ল জেডিইউ। ভেঙে গেল সতেরো বছরের পুরনো জোট। বিকেল তিনটেয় সাংবাদিক বৈঠক করে সম্পর্ক ত্যাগের কথা জানিয়ে দিল দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। জেডিইউ সভাপতি শরদ যাদব জানিয়েছেন সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে জোট চালিয়ে যাওয়া, বিজেপি বা জেডিইউ কারোর পক্ষেই লাভজনক হত না।
শরদ যাদব জানায় জেডিইউয়ের জাতীয় পরিষদের বৈঠকের পরেই তাঁরা বিজেপির কাছে স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন, যে জাতীয় নীতির ওপর ভিত্তি করে জোট তৈরি হয়েছে তাতে বদলস মেনে নেওয়া হবে না। বিজেপির প্রচার কমিটির পদে নরেন্দ্র মোদীর অভিষেকের পর উত্সাহী বিজেপি নেতাদের ভাষণগুলি মেনে নেওয়া যায়নি বলেও জানিয়েছেন শরদ যাদব। অন্যদিকে, নীতীশ কুমার জানিয়ে দিলেন জোট ভাঙার পর বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণে ১৯ তারিখ বিশেষ অধিবেশন ডাক দেওয়া হয়েছে। সেই অধিবেশনে আস্থাভোটের ডাক দেওয়া হয়েছে। সাংবাদিক সম্মেলনের আগে রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করেন নীতীশ কুমার। রাজ্যপালকে জোট ভাঙার কথা জানিয়ে তিনি বিশেষ অধিবেশন ডাকার অনুমতি চান।
১৯ জুন বিশেষ অধিবেশনের পরেই রয়েছে ২০ জুন আস্থা ভোট। ২৪৩ আসনের বিহার বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতার ম্যাজিক ফিগার ১২২। তারমধ্যে জেডিইউয়ের ১১৮, বিজেপির ৯১, আরজেডির ২২, কংগ্রেসের ৪, এলজেপির ১, সিপিআইয়ের ১ ও নির্দল ৬ জন বিধায়ক রয়েছেন। ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছতে মাত্র ৪ জন বিধায়কের সমর্থন প্রয়োজন নীতীশ কুমারের।