জামিন পেলেন না কানিমোড়ি, no bail to kanimozhi

জামিন পেলেন না কানিমোড়ি

জামিন পেলেন না কানিমোড়িসিবিআই-এর তরফে তাঁর জামিন আবেদনের বিরোধিতা করা হয়নি। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর দফতরের নিয়ন্ত্রণাধীন তদন্তকারী সংস্থাটির এ হেন 'পক্ষপাতদুষ্ট' আচরণের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে নালিশ জানিয়েছিলেন টুজি কাণ্ডের অন্য কয়েকজন অভিযুক্ত। আর টানাপোড়েনের মধ্যে বৃহস্পতিবার করুণানিধি-কন্যা কানিমোড়ির জামিনের আর্জি খারিজ করল দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্ট। সেই সঙ্গে নাকচ হয়েছে, স্পেকট্রাম কেলেঙ্কারির অন্য সাত অভিযুক্তের জামিনের আবেদনও।
ডিএমকে'র রাজ্যসভা সাংসদের পাশাপাশি করুণানিধি পরিবারের মালিকানাধীন কলাইঙ্গার টিভির ম্যানেজিং ডিরেক্টর শরদ কুমার এবং বলিউডের চিত্রপরিচালক করিম মোরানি, সোয়ান টেলিকমের প্রধান শাহিদ উসমান বালওয়ার তুতো ভাই আসিফ বালওয়া এবং আসিফের বন্ধু তথা 'কুশেগাঁও ফ্রুটস অ্যান্ড ভেজিটেবল'-এর কর্ণধার রাজীব আগরওয়ালের জামিন আবেদনও এদিন খারিজ করেছেন বিশেষ সিবিআই আদালতের বিচারক ও পি সাইনি। উল্লেখ্য, কানিমোড়ি-সহ এই পাঁচ অভিযুক্তের জামিনের বিরোধিতা করা হয়নি সিবিআই-এর তরফে। অন্য দিকে সিবিআই-এর তরফে 'স্পেকট্রাম কাণ্ডের অন্যতম প্রধান ষড়যন্ত্রী' হিসেবে বর্ণনা করে যে তিন অভিযুক্তের জামিনের বিরোধিতা করা হয়েছিল, তাঁদের আবেদনও খারিজ হয়েছে। এই তালিকায় রয়েছে, প্রাক্তন টেলিকম সচিব সিদ্ধার্থ বেহুরা, এ রাজার প্রাক্তন ব্যক্তিগত সচিব আর কে চান্দোলিয়া এবং সোয়ান টেলিকমের প্রধান শাহিদ উসমান বালওয়ার নাম।
গত ২২ অক্টোবর, টুজি স্পেকট্রাম কাণ্ডে সিবিআই-এর রিপোর্ট মেনে নিয়ে কানিমোড়ি, প্রাক্তন মন্ত্রী এ রাজা সহ ১৪ জন ব্যক্তি ও ৩ টি সংস্থার বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে পাতিয়ালা হাউস কোর্ট। চার্জ গঠন করার পর তাঁরা জামিনের আবেদন করতে পারবেন বলে জানায় আদালত। এরপরই জামিনের আবেদন করেন কানিমোড়ি এবং অন্যরা। ২৪ অক্টোবর বিচারক ও পি সাইনির এজলাসে শুনানির সময় কানিমোড়ির আইনজীবী আলতাফ আহমেদ বলেন, মহিলা বলেই তাঁর মক্কেলের জামিনের বিষয়টি আদালতের অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত। শুনানির পর বিচারক ওপি সাইনি আগামী ৩ নভেম্বর পর্যন্ত ডিএমকের রাজ্যসভা সাংসদ-সহ সাত জন অভিযুক্তের জামিনের আবেদন সংক্রান্ত রায়দান স্থগিত রাখার কথা ঘোষণা করেছিলেন। এদিন পাতিয়ালা হাউস আদালত আগামী ১১ নভেম্বর থেকে স্পেকট্রাম মামলার বিচার শুরুর কথাও ঘোষণা করেছে। ফলে মে মাস থেকে জেলবন্দি করুণা-কন্যাকে টুজি মামলার নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত থাকতে হবে তিহারেই।


First Published: Thursday, November 03, 2011, 14:09


comments powered by Disqus