বেঙ্গালুরু বিস্ফোরণ: তদন্তে এনআইএ, এনএসজি

Last Updated: Thursday, April 18, 2013 - 09:38

বেঙ্গালুরুতে বিস্ফোরণে আহতদের সঙ্গে দেখা করতে আজ হাসপাতালে যাচ্ছেন কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী জগদীশ সেত্তার। অন্যদিকে, বিস্ফোরণস্থলে ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু করে দিয়েছে `ন্যাশনাল ইনভেসটিগেশন এজেন্সি`(এনআইএ) ও `ন্যাশনাল সিকিউরিটি গার্ড`(এনএসজি) -এর প্রতিনিধি দল। ফরেনসিক ল্যাবরেটরির প্রাথমিক রিপোর্টে জানা গিয়েছে বিস্ফোরক তৈরি করতে সম্ভবত অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট ব্যবহার করা হয়েছিল। একটি বাইকের মধ্যে বোম লোকানো ছিল বলে সূত্রের খবর। প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ান অনুযায়ী অপরাধীদের ছবি আঁকার চেষ্টা করা হচ্ছে পুলিসের তরফ থেকে। তবে এখনও পর্যন্ত গ্রেফতার হয়নি কেউই। মুম্বইতে `হাই অ্যালার্ট` জারি করা হয়েছে।
গতকালই বেঙ্গালুরুতে বিজেপি কার্যালয়ের সামনে বিস্ফোরণের ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। তদন্তে নেমে প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে ঘটনার পেছেনে থাকতে পারে ইন্ডিয়ান মুজাহিদ্দিনের হাত। তবে ঘটনার তদন্ত প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, ``বেঙ্গালুরুতে বিস্ফোরণের খবর আমি পেয়েছি। তদন্তও শুরু হয়েছে। প্রয়োজনে আমি কর্ণাটক সরকারের সঙ্গেও কথা বলব।"
বুধবার সকালে বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে বেঙ্গালুরুর মালেশ্বরম এলাকা। সকাল ১০টা ৪৫ নাগাদ মালেশ্বরমে বিজেপির কার্যালয়ের সামনে বিস্ফোরণ হয়। ঘটনায় আট পুলিসকর্মী সহ মোট ১৪ জন আহত হয়েছেন। এঁদের মধ্যে দু`জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।
এর পর বেলা দু`টো নাগাদ হেব্বাল অঞ্চলে আরেকটি বিস্ফোরণের খবর পাওয়া যায়। তবে পুলিস দ্বিতীয় বিস্ফোরণের ঘটনা স্বীকার করেনি।
মালেশ্বরমের বিস্ফোরণে আগুনে ভস্মীভূত হয়ে যায় পাঁচটি গাড়ি। গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন, একটি চুরি করা মোটর সাইকেলে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। বিস্ফোরণ ঘটাতে ইমপ্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস বা আইইডি এবং টাইমার ডিভাইস ব্যবহার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তাঁরা।
ওই মোটরবাইকের মালিককে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিস। এছাড়াও পুলিস কথা বলেছে বেশ কয়েকজনের সঙ্গে।
কর্নাটক পুলিসের তরফে প্রাথমিকভাবে এনআইএ-র সাহায্য না চাওয়া হলেও, ঘটনাস্থলে পৌঁছয় এনআইএ। বিজেপি অফিসের সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করেছে এনআইএ। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের বিশেষ সচিব সর্বক্ষণ যোগাযোগ রাখছেন কর্নাটকের মুখ্যসচিবের সঙ্গে। বিস্ফোরণস্থলে রয়েছে এনএসডির দলও। বিস্ফোরণস্থল থেকে নমুনা সংগ্রহ করেছে ফরেনসিক দল। রয়েছে বম্ব ডিসপোজাল স্কোয়াড। সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখছে পুলিস।
৫ মে কর্নাটকে বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে বিস্ফোরণের ঘটনায় স্বাভাবিক ভাবেই আরও বেশি করে উত্তেজনা ছড়িয়েছে।
চিন্নাস্বামী স্টেডিয়াম এবং দিল্লি হাইকোর্ট চত্বরে যেভাবে বিস্ফোরণ ঘটনা হয়েছিল, তার সঙ্গে বেঙ্গালুরুর আজকের ঘটনার মিল পাচ্ছেন গোয়েন্দারা।



First Published: Thursday, April 18, 2013 - 09:38


comments powered by Disqus