বদায়ুঁ ধর্ষণ-রাহুলের পর এবার নির্যাতিতার বাড়িতে মায়াবতী

Last Updated: Sunday, June 1, 2014 - 11:13

রাহুল গান্ধীর পর এবার মায়াবতী। উত্তরপ্রদেশের বদায়ুঁর কাটরা গ্রামে আজ নির্যাতিতা দুই বোনের বাড়ি যাচ্ছেন বিএসপি নেত্রী। বদায়ুঁকাণ্ডে তিনিই প্রথম সিবিআই তদন্ত দাবি করেন।

গতকাল নির্যাতিতাদের বাড়ি গিয়ে সিবিআই তদন্তের দাবি করেছিলেন কংগ্রেস সহসভাপতি রাহুল গান্ধীও। এরপরই চাপে পড়ে সিবিআই তদন্তে সম্মতি দেন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব। এমনকি সরিয়ে দেওয়া হয় মুখ্যসচিবকেও। গত মঙ্গলবার কাটরা গ্রামে দুই বোনকে গণধর্ষণ করে খুন করা হয়।

পুলিসি অহযোগিতারও অভিযোগ ওঠে। নির্যাতিতার পরিবারকে পাঁচ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণের দেওয়ার কথা ঘোষণা করে উত্তরপ্রদেশ সরকার। যদিও নির্যাতিতার বাবা জানিয়ে দেন আর্থিক ক্ষতিপূরণ নয় দোষীদের শাস্তি চান তাঁরা। ঘটনায় দুই পুলিসকর্মীসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিস।

এদিকে,ঘরে বাইরে প্রবল চাপের মুখে পড়ে শেষ পর্যন্ত বদায়ূঁর দুই তুতোবোন গণধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় শনিবার সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব।

সরকারিস্তরে একটি বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে ``নিগৃহীতাদের পরিবারের দাবি মেনে প্রধানমন্ত্রী বদায়ূঁর ঘটনায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।``

দুই ধর্ষিত ও নিহত কিশোরীর পরিবারের তরফ থেকে এর আগে জানানো হয় স্থানীয় পুলিস প্রশাসনের উপর তাঁদের বিন্দুমাত্র আস্থা নেই। তাঁরা সিবিআই তদন্তের দাবি করেন।

এর আগে আজই উত্তরপ্রদেশের বদায়ূঁতে গণধর্ষণ করে খুন হওয়া দুই কিশোরীর পরিবারের সঙ্গে দেখা করলেন কংগ্রেস সহ সভাপতি রাহুল গান্ধী। রাহুল গান্ধীর কাছে সিবিআই তদন্তের দাবি জানায় দুই কিশোরীর পরিবার।

এই ঘটনায় পুলিসি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ ওঠায় অস্বস্তিতে অখিলেশ যাদব সরকার। লখনউ সচিবালয়ে ফোন করে তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে খোঁজখবর নেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। এরপরেই মুখরক্ষায় দুই পুলিসকর্মীকে বরখাস্ত করা হয়।

আটচল্লিশ ঘণ্টায় তিনটি গণধর্ষণ। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে দেশজুড়ে সমালোচনার মুখে পড়ে অবশেষে সক্রিয় হল উত্তরপ্রদেশ সরকার। বদায়ূঁর ঘটনায় কর্তব্যে গাফিলতির অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে দুই পুলিসকর্মীকে। ফাস্ট ট্র্যাক কোর্ট গঠনেরও ঘোষণা হয়েছে। এরই মাঝে মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদবের বেফাঁস মন্তব্যে নতুন করে মাথা চাড়া দিয়েছে বিতর্ক।

দিল্লির নির্ভয়া কাণ্ডের পর উত্তর প্রদেশের বদায়ূঁ। দুই দলিত কিশোরীর গণধর্ষণ ও হত্যাকে কেন্দ্র করে ফের উত্তাল দেশ। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে অখিলেশ যাদব সরকারকে দুষেছে প্রায় সবকটি রাজনৈতিক দলই। বদায়ূঁর ঘটনার সিবিআই তদন্ত এবং উত্তরপ্রদেশে রাষ্ট্রপতি শাসনের দাবি করেছেন BSP নেত্রী মায়াবতী।

অন্যদিকে, ধর্ষিত দুই তুতো বোনের একজনের বাবা এই ঘটনায় জাতিগত বিদ্বেষের অভিযোগ আনলেন। তাঁর দাবি ওই অঞ্চলের প্রভাবশালী যাদবরা দলিতদের অবদমিত করার জন্য ষড়যন্ত্র করেই এই ঘটনা ঘটিয়েছে।

ভারতের অনান্য বেশ কিছু রাজ্যের মত উত্তরপ্রদেশে ধর্মীয় ও জাতিগত বিদ্বেষের প্রভাব ব্যাপক। বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে বিরোধিতার কারণে যখ নতখন এই রাজ্যে হিংসাত্মক ঘটনা ঘটে যাওয়ার প্রবণতা রয়েছে। এই রকম পরিস্থিতি নিগৃহীত কিশোরীর বাবার অভিযোগ বারুদে অগ্নিসংযোগ করতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

বদায়ূঁর ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছে দিল্লিও। লখনউয়ের সচিবালয়ে ফোন করে তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে খোঁজ দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। চাপের মুখে সক্রিয় হয়েছে উত্তরপ্রদেশ সরকার। গাফিলতির অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে দুই পুলিসকর্মীকে। ফাস্টট্র্যাক কোর্ট গঠনেরও ঘোষণা করেছে সরকার। যদিও, সেই উদ্যোগে ঢাকা পড়ে গেছে মুখ্যমন্ত্রীর বেফাঁস মন্তব্যে।

অন্যদিকে, সমাজবাদী পার্টি সুপ্রিমো মুলায়ম সিং যাদবের নির্বাচনী কেন্দ্র আজমগড়ে গণধর্ষণের শিকার হলেন ১৭ বছরের এক দলিত কিশোরী। পুলিস সূত্রে জানা গেছে বৃহস্পতিবার রাতে চার ব্যক্তি ওই কিশোরীকে একটি মাঠে জোর করে টেনে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে।।



First Published: Sunday, June 1, 2014 - 11:13


comments powered by Disqus