প্রসবের সময় ভয়ঙ্কর কাণ্ড! টানাটানিতে মাথা থেকে শিশুর দেহ ছিঁড়ে বেরিয়ে এল নার্সদের হাতে

মহিলার শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁর দেহে অস্ত্রপচার করেন উমেদ হাসাপাতালের চিকত্সকরা। তখনই বেরিয়ে পড়ে আসল সত্য

Updated: Jan 11, 2019, 04:50 PM IST
প্রসবের সময় ভয়ঙ্কর কাণ্ড! টানাটানিতে মাথা থেকে শিশুর দেহ ছিঁড়ে বেরিয়ে এল নার্সদের হাতে

নিজস্ব প্রতিবেদন: সরকারি হাসপাতালে ভয়ঙ্কর কাণ্ড। সন্তান প্রসব করতে এসে নার্সদের বেপরওয়া কর্মকাণ্ডের শিকার হলেন এক মহিলা। সন্তান প্রসব করাতে গিয়ে এতটাই জোরে সন্তানের দেহ ধরে টান দেন এক নার্স যে শিশুর মাথা ছিঁড়ে মায়ের গর্ভে রয়ে যায়। জয়সলমীরের রামগড় হাসপাতালের ঘটনা।

আরও পড়ুন-কোথাও কোনও সিনেমা বন্ধের নির্দেশ নেই : মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন

এ সপ্তাহের ওই ঘটনায় রাজ্যজুড়ে শোরগোল শুরু হয়েছে। সরকারি হাসাপতালের চিকিত্সা ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহল থেকে। মায়ের গর্ভে যে শিশুর মাথা রয়ে গিয়েছে তা একেবারেই চেপে যান হাসপাতালের নার্সরা। তাঁরা ওই মহিলার পরিবারকে জানিয়েদেন চিকিত্সার জন্য ওই মহিলাকে জোধপুরে নিয়ে যেতে হবে।

এদিকে অসুস্থ ওই মহিলাকে ভর্তি করা হয় জোধপুরের উমেদ হাসাপাতালে। রামগড় হাসপাতাল থেকে উমেদ হাসপাতালকে জানিয়ে দেওয়া হয়, ওই মহিলার প্রসব করানো হয়েছে কিন্তু গর্ভে প্লাসেন্টা রয়ে গিয়েছে। মহিলার শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁর দেহে অস্ত্রপচার করেন উমেদ হাসাপাতালের চিকত্সকরা। তখনই বেরিয়ে পড়ে আসল সত্য। দেখা যায় মহিলার গর্ভে রয়ে গিয়েছে শিশুর মাথা।

আরও পড়ুন-'দ্যা অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার' ঘিরে বড়সড় বিভাজন প্রদেশ কংগ্রেস শিবিরেই

ওই ঘটনার পর মহিলার আত্মীরা রামগড় হাসাপাতালের নার্স ও কর্মীদের বিরুদ্ধে পুলিসে অভিযোগ করেছেন। জানা যাচ্ছে হাসপাতালের কর্মীরা ওই মহিলাকে কোনও খবর না দিয়েই নবজাতকের দেহ মর্গে পাঠিয়ে দিয়েছে। ওই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। আশঙ্কাজনক অবস্থায় এখন উমেদ হাসপাতালে ভর্তি প্রসুতি।