প্রতিবাদের বর্ষবরণ অন্য পার্ক স্ট্রিটে

প্রতিবাদের বর্ষবরণ অন্য পার্ক স্ট্রিটে

প্রতিবাদের বর্ষবরণ অন্য পার্ক স্ট্রিটেবর্ষবরণের সন্ধ্যায় এক অন্য পার্ক স্ট্রিট দেখল কলকাতা। উত্সবের হুল্লোড়ে গা ভাসালেও দিল্লির গণধর্ষণকাণ্ডে মৃত তরুণীকে ভুলে গেল না কলকাতা। বের হল প্রতিবাদ মিছিল। পার্ক স্ট্রিটের আলোর রোশনাইও যেন ম্লান হল প্রতিবাদীদের মোমবাতির শিখার কাছে।     

আনন্দে ভাসছে রাজ্য, আনন্দে ভাসছে গোটা পার্ক স্ট্রিট। নতুন বছরের আগের রাতে এটাই কলকাতার স্বাভাবিক ছবি। রাত যত গাঢ় হয়, নতুন সূর্য ওঠার সময় যত এগিয়ে আসে, ততই যেন বাঁধ ভাঙে উত্‍সব। পার্ক স্ট্রিটের ক্যানভাসে আঁকা এবারের ছবিটা কোথাও যেন একটু হলেও ভিন্ন। সন্ধে নামার পর থেকেই পার্ক স্ট্রিট জুড়ে প্রতিবাদের ঢেউ। কারও হাতে মোমবাতি, কারও হাতে প্ল্যাকার্ড।

দিল্লির ঘটনা নাড়িয়ে দিয়ে গেছে গোটা দেশকে। পার্ক স্ট্রিটের ঘটনা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে সমাজের আসল অসুখটা কোথায়?  আজকের মিছিলের শুরু আছে শেষ নেই।

শপথের পালা আজকেই শেষ নয়, বরং শুরু। যে লড়াইটা শুরু করে দিয়ে গেছে দিল্লির নাম না জানা তরুণী, সেই লড়াইটাকে আরও অনেকদূর এগিয়ে নিয়ে যেতে চায় আরও অনেক মুষ্ঠিবদ্ধ হাত। মুষ্ঠিবদ্ধ হাত যেন একযোগে শপথ নিতে চায়, পার্ক স্ট্রিটের মতো নারকীয় ঘটনার পর ওই তরুণীকেই যেন প্রমাণ করতে না হয়, তিনি যৌনকর্মী নন।  

বললেই বন্ধ হবে না সব। একদিনের চিত্‍কার বদলে দেবে না গোটা সমাজকে। তবে, লড়াইটা যে চালিয়ে যেতে হবে এ শিক্ষা কিন্তু দিয়ে গেল দিল্লি অথবা পার্ক স্ট্রিট।

First Published: Monday, December 31, 2012, 21:39


comments powered by Disqus