জেঠমালানি সাসপেন্ড, আজ বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিতে পারে দল

শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে দল থেকে সাসপেন্ড হলেন বিজেপি সাংসদ রাম জেঠমালানি। তাঁকে বহিষ্কার করা হবে কিনা সে বিষয়ে আগামীকাল বিজেপি সংসদীয় দলের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আজ বিজেপি সভাপতি নীতীন গড়করি, জেঠমালানিকে সাসপেন্ড করেন। দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় গড়করিকে দলের সভাপতির পদ থেকে সরানোর জন্য প্রকাশ্যেই সওয়াল করছিলেন রাম জেঠমালানি।

Updated: Nov 25, 2012, 09:41 PM IST

শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে দল থেকে সাসপেন্ড হলেন বিজেপি সাংসদ রাম জেঠমালানি। তাঁকে বহিষ্কার করা হবে কিনা সে বিষয়ে আগামীকাল বিজেপি সংসদীয় দলের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আজ বিজেপি সভাপতি নীতীন গড়করি, জেঠমালানিকে সাসপেন্ড করেন। দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় গড়করিকে দলের সভাপতির পদ থেকে সরানোর জন্য প্রকাশ্যেই সওয়াল করছিলেন রাম জেঠমালানি। গড়করির মাথায় সঙ্ঘ পরিবারের হাত থাকায় তাঁর এই আচরণে যথেষ্ট অসন্তুষ্ট ছিলেন মোহন ভাগবতরা। লোকপাল বিল সংশোধনের জন্য গঠিত সিলেক্ট কমিটি, তিন সদস্যের প্যানেলের মাধ্যমে সিবিআইয়ের প্রধানকে নিয়োগের সুপারিশ করে। 
যদিও, তার আগেই কেন্দ্রীয় সরকার নতুন সিবিআই প্রধানের নাম ঠিক করে ফেলায় কংগ্রেসের সমালোচনায় সরব হয় বিজেপি। এ ক্ষেত্রেও প্রকাশ্যেই দলীয় অবস্থানের বিরুদ্ধে মত প্রকাশ করেন রাম জেঠমালানি। বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব নিজেদের স্বার্থেই নতুন সিবিআই প্রধানের নিয়োগের বিরোধিতা করছেন বলে অভিযোগ করেন জেঠমালানি। এমনকি আজ তিনি বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সাহস কারোর নেই। প্রতিদিনই এ  ভাবে দলের অস্বস্তি বাড়ানোয় প্রবীণ এই আইনজীবীকে অবশেষে ছেঁটে ফেলল বিজেপি। বিজেপির সিদ্ধান্তের পিছনে সঙ্ঘ পরিবারের হাত রয়েছে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। জেঠমালানির মন্তব্য কংগ্রেসেরই সুবিধা করে দেওয়ায় তাঁর বিরুদ্ধে শাস্তির সিদ্ধান্ত নেওয়া হল বলে জানিয়েছেন বিজেপি মুখপাত্র শাহনওয়াজ হুসেন।