আজ লোকসভায় পেশ তথ্যের অধিকার সংক্রান্ত সংশোধিত বিল

আজই হয়ত আলোচনার জন্য লোকসভায় পেশ হবে তথ্যের অধিকার সংক্রান্ত সংশোধিত বিল। এই বিল পাশ হলে দেশের রাজনৈতিক দলগুলি তাদের তথ্য গোপন রাখতে পারবে। একই সঙ্গে আজ আলোচনার জন্য রাজ্যসভায় পেশ হতে পারে খাদ্য সুরক্ষা বিল। 

Updated: Sep 2, 2013, 11:32 AM IST

আজই আলোচনার জন্য লোকসভায় পেশ হবে তথ্যের অধিকার সংক্রান্ত সংশোধিত বিল। এই বিল পাশ হলে দেশের রাজনৈতিক দলগুলি তাদের তথ্য গোপন রাখতে পারবে। একই সঙ্গে আজ আলোচনার জন্য রাজ্যসভায় পেশ হতে পারে খাদ্য সুরক্ষা বিল। 
খাদ্য সুরক্ষা এবং জমি অধিগ্রহণ বিলের পর এবার তথ্যের অধিকার সংক্রান্ত সংশোধনী বিল। সম্ভবত আজই আলোচনার জন্য লোকসভায় পেশ হতে পারে এই বিল। সংশোধিত বিলে দু`হাজার পাঁচের তথ্যের অধিকার সংক্রান্ত আইনে কিছু পরিবর্তনের কথা বলা হয়েছে। এই বিল পাশ হলে রাজনৈতিক দলগুলি তথ্য গোপন করতে পারবে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার ছাড়পত্র পেয়ে দু`হাজার বারো সালের অগাস্ট মাসে লোকসভায় প্রথম পেশ হয় সংশোধিত তথ্যের অধিকার বিল। 
বিলটি পেশ করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ভি নারায়ণস্বামী। সেইসময় এই সংশোধিত বিলের বিরোধিতা করেন তথ্যে অধিকারের দাবিতে আন্দোলনরত বহু মানুষ।  গতবছর  জুন মাসে একটি নির্দেশিকা জারি করে দেশের ছটি রাজনৈতিক দলকে তথ্যের অধিকার আইনের আওতাভুক্ত করে কেন্দ্রীয় তথ্য কমিশন। সেই ছটি দল হল কংগ্রেস, বিজেপি, এনসিপি, সিপিআইএম, সিপিআই ও বিএসপি। ঠিক  দুমাস পরেই তথ্যের অধিকার আইনে পরিবর্তনের পক্ষে মত দেয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। এরপরই বিলের দ্বিতীয় সেকশনে সংশোধন আনতে উদ্যোগী হয় সরকার। পাশাপাশি আজই হয়ত রাজ্যসভায় পেশ হবে খাদ্য সুরক্ষা বিল।
গত মাসের ২৬ তারিখ সুদীর্ঘ আলোচনা, বিতর্ক ও সবশেষে ভোটাভুটির পর লোকসভায় পাশ হয় খাদ্য সুরক্ষা বিল। রাজ্যসভায় এই বিল পাশ হলে দেশে দারিদ্র সীমার নিচে বসবাসকারি আশি কোটি মানুষ তিন টাকা কেজি দরে চাল, দু টাকা কেজি দরে গম ও এক টাকা কেজি দরে শুকনো শস্য পাবে। ২০০৯ সালের সাধারণ নির্বাচনে এই বিলই ছিল কংগ্রেসের প্রধান হাতিয়ার। দুহাজার চোদ্দোর লোকসভা নির্বাচনেও ফের এই বিলকেই তুরুপের তাস করতে চলেছে ইউপিএ সরকার। তবে সংখ্যাতত্বের নিরিখে লোকসভার মত সুবিধাজনক জায়গায় না থাকলেও, রাজ্যসভাতেও খাদ্য সুরক্ষা বিল পাশের ব্যপারে আশাবাদী কংগ্রেস।