জাতীয় পতাকা, ফুলে সাইনা-বরণ

জাতীয় পতাকা, ফুলে সাইনা-বরণ

জাতীয় পতাকা, ফুলে সাইনা-বরণঅলিম্পিকে ব্রোঞ্জ জিতে দেশে ফিরলেন সাইনা নেহওয়াল। বিমানবন্দরে সাইনাকে স্বাগত জানাতে ছিলেন অজস্র মানুষজন। সাইনাকে কাছে পেয়ে আপ্লুত তাঁর বাবা হরবীর সিং। জানালেন দেশবাসীর সমর্থন পেয়েই সাইনা এই সাফল্য পেয়েছেন।

লন্ডন অলিম্পিকে প্রথম ভারতীয় হিসাবে ব্যাডমিন্টনে পদক জিতে দেশে ফিরলেন সাইনা নেহওয়াল। সাইনাকে স্বাগত জানাতে সাত সকাল থেকেই হায়দারাবাদ বিমানবন্দর চলে যায় সাধারণ মানুষের দখলে। জাতীয় পতাকা, ব্যান্ড এবং ফুল নিয়ে অসংখ্য সমর্থক উপস্থিত হয়েছিলেন বিমানবন্দরে। টার্মিনাল থেকে বেরোনো মাত্রই তাঁকে ঘিরে ফেলেন সবাই। সাইনাকে এক ঝলক দেখার জন্য সবাই মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন। সাইনাও নিরাশ করেননি সমর্থকদের। সবার উদ্দেশ্যে স্বপ্নপূরণের পদকটি তুলে ধরেন সাইনা। হাত নাড়িয়ে কৃতজ্ঞতা জানান সমর্থকদের। কড়া নিরাপত্তার ঘেরাটোপে সাইনাকে বিমানবন্দর থেকে বের করে নিয়ে যাওয়া হয়। মেয়েকে কাছে পেয়ে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন বাবা হরবীর সিং। স্বাভাবিক ভাবেই সাইনার কৃতিত্বে গর্বিত তাঁর বাবা।
  জাতীয় পতাকা, ফুলে সাইনা-বরণ
সাইনার মতই তাঁর কোচ পুলেল্লা গোপীচাঁদও ছিলেন আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু। এরপর বিমানবন্দর থেকে বাসের ছাদে চাপিয়ে শহরের প্রাণকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। যাতে সাইনা দর্শকদের কৃতজ্ঞতা জানানোর পাশাপাশি অভিবাদনও গ্রহণ করতে পারেন।  সাইনার সঙ্গেই ভারতে ফিরেছেন জোয়ালা গুট্টা এবং অশ্বিনী পোনাপ্পারাও।
 
ব্যাডমিন্টনে মহিলাদের সিঙ্গলসে তৃতীয় স্থান নির্ধারণীর প্রথম গেমের শেষদিকে চিনা প্রতিদ্বন্দ্বী জিং ওয়াংয়ের পেশিতে টান ধরে । তখন ১৮-২০-তে পিছিয়ে সাইনা। শ্রূশ্রুষার পর কিছুক্ষণের মধ্যে জিং কোর্টেও ফেরেন। ফিরে প্রথম গেম ২১-১৮তে জিতেও নেন তিনি। তবে প্রথম গেম জিং ওয়াং জিতলেও লড়াইয়ে ফিরে এসেছিলেন সাইনা। টানা পাঁচটি পয়েন্ট নিয়ে কড়া চ্যালেঞ্জ দেন সাইনা। এরপর দ্বিতীয় গেমের শুরুতে ফের পায়ে টান ধরায় জিং মাঠ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন। ফলে প্রথম গেম হারলেও জিং ওয়াং অবসৃত হওয়ায় রেফারি সাইনা নেহওয়ালকে জয়ী ঘোষণা করেন। ফলে শেষ পর্যন্ত তামাম ভারতবাসীর প্রত্যাশা পূরণ করে ব্রোঞ্জ পান সাইনা নেহওয়াল।





First Published: Tuesday, August 07, 2012, 20:49


comments powered by Disqus