পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সরবজিতের শেষকৃত্য সম্পন্ন

Last Updated: Friday, May 3, 2013 - 09:37

পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সম্পন্ন হল সরবজিৎ সিংয়ের শেষকৃত্য। নিজের গ্রামে তাঁর অন্ত্যেষ্টিতে সামিল হয়েছিলেন রাহুল গান্ধী, পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী প্রকাশ সিং বাদল। তাঁর শেষ যাত্রায় সরবজিতকে গার্ড অফ অনার দেওয়া হয়।
দীর্ঘ ২৩ বছর, প্রতি মুহূর্তে চেয়েছিলেন দেশে ফিরে আসতে। পাকিস্তানের জেলের কুঠরিতে ছিলেন অনন্ত অপেক্ষায়। কিন্তু মেলেনি দেশে ফেরার অনুমতি। অবশেষে অপেক্ষার অবসান হল। দেশের মাটিতে ফেরার ছাড়পত্র পেলেন সরবজিৎ সিং। কিন্তু মৃত্যুর হাত ধরে। গতকাল রাতে তাঁর নিহর দেহ এয়ার ইন্ডিয়ার বিশেষ বিমানে লাহোর থেকে অমৃতসরের মাটি ছোঁয়। তাঁর জন্য রাজাসাঁসি বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন পঞ্জাবের উপমুখ্যমন্ত্রী সুখবীর সিং বাদল এবং বিদেশমন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী প্রীনিত কৌর। রাতে মৃতদেহের আরও একবার ময়নাতদন্ত হয়। এরপর তাঁর মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়। আজ সরবজিতের পৈতৃক বাড়ি পাঞ্জাবের তরণ তারণের ভিখিউইন্ড গ্রামে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে তাঁর।
পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী প্রকাশ সিং বাদল সরবজিৎকে 'শহীদ' ঘোষণা করেছেন। সরবজিত সিংয়ের মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী  মনমোহন সিং। মৃতের পরিবারের জন্য নিজস্ব ত্রাণ তহবিল থেকে পঁচিশ লক্ষ টাকা দেওয়ার ঘোষণাও করেছেন প্রধানমন্ত্রী। পঞ্জাব সরকারও সরবজিতের পরিবারকে আর্থিক সহায়তার কথা ঘোষণা করেছে। সেইসঙ্গে রাজ্যে তিনদিনের রাষ্ট্রীয় শোকের ঘোষণাও করা হয়েছে। এই সময় রাজ্যের সবকটি সরকারি দফতরে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে। 
প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার ভারতীয় সময় রাত দেড়টা নাগাদ লাহোরের জিন্না হাসপাতালে মৃত্যু হয় সরবজিত্ সিংয়ের। গত শুক্রবার লাহোরের কোট লাখপত জেলে সরবজিতের ওপর হামলা চালায় ছয় পাক বন্দি। তাঁর মাথায় ইট দিয়ে বারবার আঘাত করা হয়। উদ্ধার করার পর লাহোরের জিন্না হাসপাতালে ভর্তি করা হয় সরবজিতকে। দ্রুত কোমাচ্ছন্ন হয়ে পড়েন তিনি। উপযুক্ত চিকিত্সার জন্য সরবজিতকে দেশে ফেরানোর অনুমতি চেয়ে পাকিস্তান সরকারকে বার বার অনুরোধ জানায় ভারত। কিন্তু তাতে সাড়া দেয়নি ইসলামাবাদ। যদিও, সরবজিতের বোন, স্ত্রী ও দুই মেয়ের ১৫দিনের ভিসা মঞ্জুর করে পাকিস্তান। রবিবার তাঁরা হাসপাতালে গিয়ে সরবজিতকে দেখে আসেন।
সরজিতের শেষ যাত্রা- টাইমলাইন
২টো ৩৬: পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সম্পন্ন হল সরবজিতের শেষকৃত্য।
২টো ৩০: সরবজিৎ সিংকে গার্ড অফ ওনার দেওয়া হল।
২টো ২০: রাহুল গান্ধী ও পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী,উপমুখ্যমন্ত্রী সহ সমস্ত উচ্চ পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত সরবজিতের শেষকৃত্যে।
২টো ১৫: সরবজিৎ সিংকে পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষ শ্রদ্ধা জানানো হবে।
২টো: সমাধিক্ষেত্রে পৌঁছালো সরবজিতের দেহ।
১টা ৫০: সরবজিৎকে পূর্ব রাষ্ট্রীয় মর্যাদা দেওয়া হবে।
১টা ৩০: মস্তিষ্কে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণই সরবজিতের মৃত্যুর কারণ। পাকিস্তানে সরবজিতের ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট এই খবর জানা গেল।
১টা ২৫: সরবজিৎ সিংয়ের মৃতদেহ সমাধিস্থ করার উদ্দেশে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।
১টা ২০: অমৃতসর মেডিকেল কলেজের ডাক্তাররা জানালেন বিকেল সাড়ে চারটে নাগাদ তাঁরা সংবাদ মাধ্যমের কাছে সরবজিতের দ্বিতীয় ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেশ করবেন।
১টা ১০: সরবজিতের শেষ যাত্রায় সামিল হতে রাহুল গান্ধী অমৃতসরে পৌঁছালেন।
১২টা ২০: সাধারণ মানুষ স্থানীয় স্কুলে সরবজিৎকে শেষ শ্রদ্ধা জানলেন।
১১টা ২০: কংগ্রেসের সহসভাপতি রাহুল গান্ধী সরবজিতের শেষ যাত্রায় সামিল হওয়ার জন্য রওনা দিলেন।
১১টা ১০: সরবজিতের দেহ একটি স্থানীয় স্কুলে নিয়ে আসা হল। সাধারণ মানুষ এখানেই শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করবেন সরবজিতকে।
১১টা: সরবজিতকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে শতাধিক মানুষ জড় হয়েছেন তাঁর পৈতৃক ভিটেতে।
১০টা ৫০: সরবজিতের মত বহু ভারতীয় এখনও বন্দি পাকিস্তানের জেলে। সরকারের এখনই এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। কিন্তু সরকার কোনও সদর্থক পদক্ষেপই নিচ্ছে না। মন্তব্য বিজেপি নেতা কীর্তি আজাদের।
১০টা ৩৫: ভারতীয় সেনার অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন সরবজিতের মৃত্যুকে পরিকল্পিত হত্যা বললেন।
১০টা২০: ''যতদিন পর্যন্ত না ভারতের সব সরবজিতরা পাকিস্তান থেকে ফিরে আসছে ততদিন পর্যন্ত আমি শান্তিতে থাকব না।'' মন্তব্য দলবির কাউরের।
১০টা ১৫: ২০০স সাল থেকে প্রধানমন্ত্রী সরবজিতের মুক্তির দাবি জানিয়ে আসছেন। প্রতি ছ'মাস অন্তর বিদেশ মন্ত্রকে বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে এই বিষয়টি আলোচনা করা হয়। পাকিস্তানের জেলে অনান্য ভারতীয় বন্দিদের সুরক্ষার স্বার্থে ভারতকে পাকিস্তানের উপর চাপ বজায় রাখতেই হবে। মন্তব্য কেন্দ্রীয় তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী মণীষ তেওয়ারির।
৯টা ৩০: ''এই ঘটনা বিশ্বমানবাধিকারের উপর আঘাত।'' মন্তব্য সিপিআই নেতা অতুল অঞ্জনের।

 



First Published: Friday, May 3, 2013 - 14:50


comments powered by Disqus